আলীমের রায়েও মুখে কুলুপ জামায়াতের

স্পন্দন ডেস্ক:বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পর এবার আব্দুল আলিমের যুদ্ধাপরাধের রায়ের পরও মুখে কুলুপ এঁটেছে জামায়াতে ইসলামী।
আলীমের রায় ঘোষণার তারিখ প্রকাশের পরও কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি দলটি। আর বুধবার রায় প্রকাশের পরও কোনো প্রতিক্রিয়া দেখালো না মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত দল জামায়াত।
সন্ধ্যায় জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি রফিকুল ইসলাম খান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে ট্রাইব্যুনাল ভেঙে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের মুক্তি দাবি করলেও আলিমের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেনি দলটি।
বিবৃতিতে রাফিকুল ইসলাম খান বলেন, সরকার ইসলামী শিক্ষা ধ্বংস করতে জঙ্গিবাদের ধুয়া তুলে দেশের তিন শতাধিক মসজিদে তালা লাগিয়ে দিয়েছিল। এখন নানা ছলচাতুরী করে আবার মাদ্রাসাগুলোতে তল্লাশি চালিয়ে মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকদের হয়রানি করছে।
প্রসঙ্গত, একই অভিযোগে জামায়াতের পাঁচ শীর্ষ নেতার রায়ের দিন ও রায়ের পর হরতালসহ বিভিন্ন কর্মসূচি দিলেও বিএনপির সাবেক মন্ত্রীর রায়ের পর কোনো ধরনের কর্মসূচি দূরের কথা, কোনো প্রতিক্রিয়াই দেখায়নি দলটি।
খুলনায় কুরিয়ার সার্ভিসসহ
সাত প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
খুলনায় গ্রাহক সেবা মূল্যের তালিকা প্রদর্শন না করার অভিযোগে এসএ পরিবহন ও সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
বুধবার সকাল থেকে দুপুর জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর খুলনা বিভাগীয় কার্যালয়ের পক্ষ থেকে নগরীতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
এ সময় মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এবং নোংরা-অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাদ্যদ্রব্য বিক্রির অপরাধে আরো পাঁচটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
অভিযানে নেতৃত্ব দেন অধিদপ্তরের বিভাগীয় উপ-পরিচালক (উপ-সচিব) সৈয়দ রবিউল আলম।
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর খুলনা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. মামুনুল হাসান জানান, নগরীর জোড়াগেট, নিউ মার্কেট, শহীদ হাদিস পার্ক ও সাউথ সেন্ট্রাল রোড এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু হয়।
অভিযানকালে নিউ মার্কেট সংলগ্ন বিমান অফিস ভবনে অবস্থিত সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসে গ্রাহক সেবা মূল্যের কোনো তালিকা প্রদর্শিত পাওয়া যায়নি। এ অপরাধে ওই শাখার ইনচার্জকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
একই অভিযোগ পাওয়া যায় শহীদ হাদিস পার্ক সংলগ্ন এসএ পরিবহনের খুলনা শাখা কার্যালয়ে। এখানে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা এবং অতিরিক্ত মূল্য নেওয়ার দায়ে বিসমিল্লাহ মেডিকেলকে ১০ হাজার টাকা, প্যাকেটের গায়ে মূল্য না লেখার অভিযোগে শাহীন বেকারিকে ১০ হাজার টাকা, সাহা বেকারিকে ১০ হাজার টাকা, বিসমিল্লাহ বেকারিকে ৫ হাজার টাকা ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাবার বিক্রির অপরাধে আহসান উল্লাহ হোটেলকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব কুমার রায়সহ র‌্যাব, পুলিশ, পরিবেশ অধিদপ্তর ও মৎস্য বিভাগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।