তালার হাজরাকাটি গ্রামে বিদ্যুতায়নের উদ্বোধন

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি:সাতক্ষীরার তালা উপজেলার হাজরাকাটি গ্রামে বিদ্যুতায়নের উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব প্রকৌশলি শেখ মুজিবুর রহমান উদ্বোধন করেন। পরে তিনি হাজরাকাটি বাজারে এক মতবিনিময় সভায় যোগ দেন।
খলিলনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান সরদার ইমান আলীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন তালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি’র জিএম শংখর কুমার কর, খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান প্রনব ঘোষ বাবলু । আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার জাকির, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক সরদার মশিয়ার, স্থানীয় ইউপি সদস্য আক্কাজ আলী শেখ, ডা. রিয়াজ উদ্দীন শেখ, সরদার আফজাল হোসেন প্রমূখ।
তালায় ১৮৪টি পূজা মণ্ডপে
৮১ মে.টন চাল বিতরণ
তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি
সাতক্ষীরার তালায় শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষে অনুদান দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালে তালা সরকারী কলেজের হলরুমে  উপজেলার ১৮৪টি পুজা মন্ডপে ৮১ মে.টন চাল বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চাল বিতরণ করেন সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার শেখ মুজিবুর রহমান।
তালা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমারের সভাপতিত্বে এবং পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি নারায়ন মজুমদারের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুর রহমান, তালা থানার ওসি মোঃ ইনামুল হক, জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু, তালা সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল মালেক, মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুর রহমান, শালিখা কলেজের অধ্যক্ষ বিধান চন্দ্র সাধু, খলিলনগর ইউপি চেয়ারম্যান প্রণব ঘোষ বাবলু, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মীর জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার জাকির হোসেন, আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মারুফ হোসেন, প্রভাষক রাজীব হোসেন, জেবুন্নেছা বেগম ও উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক সরদার মশিয়ার রহমান প্রমূখ।
তালায় বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে
কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ
তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি
সরকার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদাসিনতা এবং অবহেলার কারণে ঝিকরগাছা থেকে কপিলমুনি পর্যন্ত কপোতাক্ষ অববাহিকার লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে অমানবিক পরিস্থিতির মধ্যে হাবুডুবু খাচ্ছে। গত দু’বছর তেমন বৃষ্টি হয়নি। এ বছর সামান্য বৃষ্টিতে অববাহিকার শত শত গ্রামের শুধু ফসলী জমি নয়, গ্রামের বসত ভিটা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ মন্দির, বাজার-ঘাট পানিতে ডুবে গেছে। সবচেয়ে  বিপর্যয়কর পরিস্থিতি দেখা গেছে তালা উপজেলায়। এখানে ঈদগাহ ময়দান ও পূজা মন্ডপ তলিয়ে থাকার কারণে বৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। জনগণের আন্দোলনের চাপে সরকার নদী খননের ২৬১কোটি ৫৫লক্ষ ৮৩ হাজার টাকার প্রকল্প গ্রহন করলেও এ পর্যন্ত মাত্র ১৪/১৫ কোটি টাকা ছাড় দিয়েছে। কপোতাক্ষের প্রবাহকে রক্ষা করার জন্য তেমন কোন কাজ হয়নি। সরকারের প্রতিশ্রুতিই সার হয়েছে। এলাকা পরিদর্শন কালে স্থানীয় জনগনের সাথে কথা বলে জানা গেছে তালা উপজেলার কানাইদিয়া থেকে জেঠুয়া পর্যন্ত মাত্র আড়াই কিলোমিটার কপোতাক্ষ জরুরী খনন করলে এলাকায় পানি দ্রুত  অপসারিত হবে।
গতকাল শুক্রবার কপোতাক্ষ বাঁচাও আন্দোলনের পক্ষ থেকে তালা উপজেলার বিভিন্ন পানিবন্দী গ্রাম পরিদর্শন করে নেতৃবৃন্দরা উপরোক্ত কথা বলেন। পরিদর্শন দলে ছিলেন কপোতাক্ষ বাচাঁও আন্দোলনের প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ, আহবায়ক অনিল বিশ্বাস, সাতক্ষীরা সমন্বয়ক অ্যাডঃ মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, জালালপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সরদার রফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, সব্যসাচী মজুমদার বাপ্পি প্রমুখ। পরিদর্শন শেষে নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতে বলেন- কানাইদিয়া থেকে জেঠুয়া পর্যন্ত জরুরী ভিত্তিতে খনন ও সংস্কার করতে হবে এবং পানিবন্দি মানুষের জন্য ত্রান ও পূর্নবাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। পাখিমারা বিলে টিআরএম চালু, দ্রুত জমির ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে। সরকার গৃহিত প্রায় ২৬২ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নে তালবাহানা বন্ধ করে দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে।