টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের লোগো উন্মোচন

ক্রীড়া প্রতিবেদক: ২০১৭ সালে শুরু হতে যাচ্ছে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। এই উপলক্ষে শনিবার ইভেন্টটির ব্র্যান্ড লোগো উন্মোচন করলেন আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন।
আবুধাবিতে এক অনুষ্ঠানে ব্র্যান্ড আইকনটির নেপথ্য ধারণা নিয়ে বক্তব্য রাখলেন রিচার্ডসন,‘আগামী চার বছর ধরে টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোর যাত্রার প্রতিনিধিত্ব করবে আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ লোগো। এই ইভেন্টের প্রকৃতি নিয়ে পৃথিবীব্যাপী প্রতিনিধিত্ব করবে এটা।’
লন্ডন ও নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক এজেন্সি বুলেটপ্রুফ এই লোগো তৈরি করেছে। উদ্বোধনী আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আসরে দলগুলোর বাছাই নিয়ে রিচার্ডসন বলেন,‘রিলায়েন্স আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের মাধ্যমে বাছাই সম্পন্ন হবে। ২০১৩ সালের ১ মে থেকে ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে বাছাইপর্ব।’
প্রথম এই টুর্নামেন্টটি আয়োজন করবে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড।

গাজীর অনন্য কীর্তি 

ক্যারিয়ারের সপ্তম টেস্টেই নিজেকে আরও ভালোভাবে চেনালেন সোহাগ গাজী। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চতুর্থ দিন দলকে তো প্রথম ইনিংসে এগিয়ে নিয়ে ব্যাটসম্যান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন এই বোলার। পঞ্চম ও শেষ দিন জাদুকরী ঘূর্ণি দেখালেন। দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে পেলেন টেস্ট হ্যাটট্রিকের মতো দুর্লভ অর্জন।
গত বছর নভেম্বরে দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অভিষেক হয়েছিল গাজীর। তার দারুণ পারফরমেন্সে অভিজ্ঞ আব্দুর রাজ্জাককে ভুলেই গিয়েছিলেন বাংলাদেশের নির্বাচকরা। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অবশেষে অভিজ্ঞ ও তারুণ্যের মিশেলে নামলেন রাজ্জাক ও গাজী। দিন যে ফুরিয়ে যায়নি রাজ্জাক সেটা প্রমাণ করেছিলেন প্রথম ইনিংসে তিন উইকেট নিয়ে। আর গাজী দেখিয়ে দিলেন তারুণ্যের শক্তি।
শনিবার চতুর্থ দিন গাজীর হার না মানা শতকে বাংলাদেশ নিয়েছিল ৩২ রানের লিড। অভিষেক শতকের পর সংবাদ সম্মেলনে ২২ বছর বয়সী তারকা জানিয়েছিলেন জেতার জন্যই শেষদিন নামবে তার দল। কথা রেখেছেন ডানহাতি এই স্পিনার। একাই ছয় উইকেট তুলে নিয়েছেন ২৬ ওভারে ৭৭ রান দিয়ে। টেস্টে এটি তার সেরা বোলিং পারফরমেন্স।
লাঞ্চের আগে কেন উইলিয়ামসন ও পিটার ফুলটনের গুরুত্বপূর্ণ দুটি উইকেট তুলে নেন গাজী। বিরতি শেষে অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালামকেও সাজঘরে পাঠান। আর দলীয় ৮৫তম ওভারে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বলে একে একে কোরি এন্ডারসন, বিজে ওয়াটলিং ও ডগ ব্রেসওয়েলকে ফিরিয়ে উল্লাসে মেতে ওঠেন গাজী।
গাজীর হাত ধরে দুবছর পর ৩৯তম হ্যাটট্রিকের মুখ দেখল আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেট। সর্বশেষ ২০১১ সালে নটিংহ্যামে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট হ্যাটট্রিক করেছিলেন স্টুয়ার্ট ব্রড। আর দেশের হয়ে দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক বোলারের তালিকায় নাম লেখালেন ডানহাতি এই অফ স্পিনার। এর আগে বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ বোলার হিসেবে পরপর তিনটি উইকেট তুলে নিয়েছিলেন অলক কাপালি, সেই ২০০৩ সালের ২৯ আগস্ট পাকিস্তানের বিপক্ষে।
আন্তর্জাতিক টেস্টে ৩৭তম বোলার হিসেবে এই কীর্তি গড়লেন গাজী। দুবার করে হ্যাটট্রিক পেয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার হিউজ ট্রাম্বল ও পাকিস্তানের ওয়াসিম আকরাম।
র‌্যাঙ্কিংয়ে চারে ওঠার
সুযোগ পাকিস্তানের

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ জিতে অস্ট্রেলিয়াকে সরিয়ে আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে চারে ওঠার সুযোগ পাচ্ছে পাকিস্তান। শীর্ষ দলের বিপক্ষে সোমবার আবুধাবিতে শুরু হবে প্রথম টেস্ট।
৯৭ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে পাকিস্তান বর্তমানে ছয় নম্বর র‌্যাঙ্কিংয়ে। পাঁচে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজের (৯৯) চেয়ে দুই পয়েন্ট ও চারে থাকা অস্ট্রেলিয়ার (১০১) চেয়ে চার পয়েন্ট পিছিয়ে মিসবাহ উল হকের দল।
এক ম্যাচ বা তার বেশি ব্যবধানে জিতলেই অস্ট্রেলিয়াকে পাঁচে ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ছয়ে নামিয়ে চারে বসবে পাকিস্তান। আইসিসি জানিয়েছে, ১-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতলে মিসবাহর দল নয় পয়েন্ট অর্জন করবে। আর প্রোটিয়াদের ধবলধোলাই করতে পারলে ১১ রেটিং পয়েন্ট পাবে।
১৩৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে বর্তমানে শীর্ষে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা পাকিস্তানের চেয়ে ৩৮ পয়েন্টে এগিয়ে।

চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র 
২০০৮ সালে এই চট্টগ্রামেই বাংলাদেশের মুখোমুখি লড়াইয়ে বিপদে পড়েছিল নিউজিল্যান্ড। সেবার দলকে উদ্ধার করেছিল সফরকারী অধিনায়ক ড্যানিয়েল ভেট্টরি। পাঁচ বছর পর সেই চট্টগ্রামের নতুন ভেন্যুতে ড্র করলেও বাংলাদেশি খেলোয়াড়দের আরও পরিণত চেহারা দেখল কিউইরা। মমিনুল হক ও সোহাগ গাজীর নৈপুণ্যে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজেদের টেস্ট ইতিহাসে দ্বিতীয় ড্র করল বাংলাদেশ।
নিউজিল্যান্ড: প্রথম ইনিংস- ৪৬৯/১০, দ্বিতীয় ইনিংস- ২৮৭/৭ ডি.
বাংলাদেশ: প্রথম ইনিংস- ৫০১/১০, দ্বিতীয় ইনিংস- ১৭৩/৩ (৪৮.২ ওভার)
ফল : ম্যাচ ড্র
চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম দিন থেকে সফরকারী ব্যাটসম্যানদের দাপুটে পারফরমেন্স শুরু হয়। কেন উইলিয়ামসন (১১৪), বিজে ওয়াটলিং (১০১) ও পিটার ফুলটনের (৭৩) ব্যাটে দ্বিতীয় দিন দ্বিতীয় সেশন পর্যন্ত তা চলতে থাকে। তবে সফরকারীদের পাল্টা জবাব দিতে অনবদ্য এক ইনিংস খেলেন মমিনুল। অভিষেক শতক গড়ার পাশাপাশি দেশের টেস্ট ইতিহাসে তৃতীয় ইনিংস সেরা রান করেন তিনি।
১৮১ রানে মমিনুল দলকে অনেকদূর টেনে নেন। তবে গাজীর ব্যাটসম্যান রূপে আবির্ভাব চমকে দিয়ে বাংলাদেশকে লিড এনে দেয় ৩২ রানের। হার না মানা ১০১ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের লাগাম টেনে ধরতে অসাধারণ বোলিংও করেন ডানহাতি এই স্পিনার।
পঞ্চম ও শেষদিন একাই তুলে নিয়েছেন ছয় উইকেট। দেশের হয়ে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে করেছেন টেস্ট হ্যাটট্রিক। পাঁচদিনের ক্রিকেটে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে এক ম্যাচেই শতক ও হ্যাটট্রিকের অনন্য রেকর্ড গড়েন গাজী।
দ্বিতীয় ইনিংসে লাঞ্চের আগে ফুলটন (৫৯) ও উইলিয়ামসনকে (৭৪) সাজঘরে ফেরান ২২ বছর বয়সী এই অফ স্পিনার। লাঞ্চ থেকে ফিরে নেন কিউই অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালামের (২২) উইকেট। আর দলীয় ৮৫তম ওভারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে কোরি এন্ডারসন ও বিজে ওয়াটলিংকে ফেরান গাজী। হ্যাটট্রিকের সুযোগ হাতছাড়া হয়নি। ডগ ব্রেসওয়েলে ব্যাটে বল লেগে সিøপে দাঁড়িয়ে থাকা সাকিব আল হাসানের হাতের মুঠোয়। টেলর ৫৪ রানে অপরাজিত থাকতে ২৫৫ রানে এগিয়ে ইনিংস ঘোষণা করে নিউজিল্যান্ড।
২৫৬ রানের লক্ষ্যে নেমে জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে খেলেনি বাংলাদেশ। ওপেনার তামিম ইকবাল ও এনামুল হক ৩৯ রানের জুটি গড়েন। ১৮ রানে এনামুল সাজঘরে ফেরেন ব্রুস মার্টিনের বলে। প্রথম ইনিংসে খালি হাতে ফেরা তামিম ঘরের মাঠে দ্বিতীয় ইনিংসে ফিফটির কাছে গিয়েও ব্যর্থ হন। ৪৬ রানে মার্টিনের দ্বিতীয় শিকার তিনি। মার্শাল আইয়ুব ৩১ রানে উইকেট তুলে দেন ইশ সোধির কাছে।
সকিব আল হাসান মাঠে নেমে বেশ কয়েকটি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দর্শকদের উল্লাসে মাতান। ৩৯ বলে চারটি চার ও তিন ছয়ে এই অলরাউন্ডার ১৪তম টেস্ট ফিফটি গড়লে দিনের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। অপর প্রান্তে মমিনুল অপরাজিত ছিলেন ২২ রানে।
২১ অক্টোবর ঢাকার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।