আনন্দে ভাসছে সোহাগ গাজীর পরিবার

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:ছেলের কৃতিত্বে গর্বে বুক ভরে উঠেছে পটুয়াখালীবাসীর।

চট্টগ্রামে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে টেস্ট ম্যাচে একই সঙ্গে সেঞ্চুরি ও হ্যাটট্রিক উইকেট লাভ করে ক্রিকেট ইতিহাসে নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করায় আনন্দের জোয়ারে ভাসছে পটুয়াখালীর সোহাগ গাজীর পরিবার।

ছেলের এ কৃতিত্বে গর্বে বুক ভরে উঠেছে বাবা মো. শাহজাহান গাজী, মা হাসিনা বেগম, বোন শাহনাজ ও সোহাগের বন্ধুরাসহ পটুয়াখালীবাসীর।

রোববার খেলা দেখেন সবাই। পটুয়াখালী শহরের কলাতলার বাসভবনে সোহাগ গাজীর হ্যাটট্রিক উইকেট লাভের পর তার পটুয়াখালীর বাসায় গিয়ে দেখা যায় পরিবারের সদস্যসহ এলাকাবাসী, বন্ধু-বান্ধব আনন্দ-উল্লাস ও মিষ্টি বিতরণ করছে।

ছেলের অসাধারণ কৃতিত্বে গর্বিত সোহাগ গাজীর মা হাসিনা বেগম বলেন, “সকাল থেকে ছেলের খেলা দেখেছিলাম। আর মহান আল্লাহর দরবারে ছেলে যেন ভালো খেলে বেশি উইকেট লাভ করতে পারে এজন্য নফল নামাজ মানত করেছি। ছেলের হ্যাটট্রিক লাভের পর নফল নামাজ আদায় করেছি। আমি দেশবাসীর কাছে আমার ছেলের জন্য দোয়া কামনা করি, সে যেন ভালো খেলে দেশের সম্মান রক্ষা করতে পারে।”

সোহাগ গাজীর বাবা শাহজাহান গাজী জানান, ছোটবেলা থেকে ক্রিকেটপাগল সোহাগ গাজী স্কুল ফাঁকি দিয়ে ক্রিকেট খেলা নিয়ে মেতে থাকলেও স্কুলের শিক্ষকদের প্রেরণায় সে খেলার পাশাপাশি লেখাপড়া চালিয়ে গেছে। তিনিসহ তার পরিবারের সব সদস্য ছোটবেলা থেকে সোহাগের ক্রিকেট খেলায় উৎসাহ জুগিয়েছেন।

ছেলের অসাধারণ সাফল্যে তিনি গর্বিত, দেশবাসীর কাছে তিনি ছেলে জন্য দোয়া চেয়েছেন।

বাবা মো. শাহজাহান গাজী আরও জানান, তিনি পুলিশে চাকরি করতেন। অবসরের পর পটুয়াখালীর কলাতলা বাজারে মেশিনারি যন্ত্রাংশের ব্যবসা করছেন। ২ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্যে সোহাগ সবার ছোট। ১৩ বছর বয়সে খুলনার দুটি ক্লাবে ছেলের ক্রিকেটের যাত্রা শুরু হয়। বাবার বদলির সুবাদে বরগুনা জেলা স্কুলে লেখাপড়া অবস্থায় খেলতে যান ভারতে। এরপর ঢাকার ক্লাব পর্যায় থেকে খেলা শুরু হয় সোহাগের। সোহাগের এই সাফল্যের পেছনে বড় ভাই শাহীন গাজীর অনুপ্রেরণা রয়েছে বলে জানালেন বাবা শাহজাহান গাজী।

সোহাগ গাজীর বোন শাহানাজ বেগম ভাইয়ের অসাধারণ কৃতিত্বে আনন্দিত। তিনি ভাইয়ের অসাধারণ সাফল্যে অনুভূতি প্রকাশ করার ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন।

এ ব্যাপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আলী আকবর মিয়া বলেন, “শুধু সোহাগ গাজীর পরিবারই নয়, গোটা পটুয়াখালীবাসী আজ গর্বিত, আনন্দিত। আমি তার আরও বড় সাফল্য কামনা করছি।