ঈদে তারকারা কে কোথায় থাকছেন

বিনোদন ডেস্ক:তারকারা ঈদের এই উৎসবে কে কোথায়  থাকছেন ? প্রিয়জনদের সাথে কিভাবে ভাগাভাগি করছেন তাদের সময়গুলো এ বিষয়ে বাংলানিউজ বিনোদন বিভাগ কথা বলে এই সময়ের কয়েকজন তারকার সাথে।

টিভি তারকা জাহিদ হাসান। ঈদের পুরো সময়টুকু দিতে চান তার মা এবং বাল্য বন্ধুদেরকে। তিনি বলেন, ‘ঈদের সমস্ত আনন্দ কাটাতে চাই আমার মায়ের সাথে আর বন্ধুদেরকে দিতে চাই আমার কাছ থেকে তাদের প্রাপ্য সময়টুকু।’

1m2ঈদের দিনে সবথেকে আনন্দের মুহুর্ত জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার সব কিছুই আমার মাকে ঘিরে। ঈদের দিনে যে আমি তার কাছে থাকতে পারি এটাই আমার কাছে সবথেকে বড় আনন্দের।’ ঈদে নিজ বাড়ি সিরাজগঞ্জে থাকবেন জাহিদ হাসান।

অভিনেত্রী বাঁধনের শশুড়বাড়ি ঢাকায়। তাই স্বভাবতই তিনি ঢাকায় ঈদ করছেন। শুটিং এর কারণে পরিবারকে ঠিকমত সময় দিতে পারেন না। এ বিষয়ে শশুড়বাড়ি থেকে অনুযোগের শেষ নেই। তাই ঈদের সময়টুকু পরিবারের সাথে থেকে তার দায়ভার কিছুটা কমাতে চান তিনি। বলেন, ‘আগে ঈদ ছিল নিজের আনন্দের জন্য। সেই আনন্দ এখন মহাদায়িত্বে পরিণত হয়েছে। এই দায়িত্বের জায়গা থেকেই আমি আমার পরিবারের সাথে ঈদের সময়টুকু কাটাতে চাই।’

ঈদের খুশির কথা বলতে গিয়ে সবার আগে বলেন তার ছোট মেয়ের কথা। ‘ঈদের দিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত আমি আমার মেয়ের সাথে থাকতে পারব এটাই আমার ঈদ আনন্দ। তবে কোরবানি ঈদে রান্নার কিছু ঝামেলা থাকে সেটাও করতে হবে। তবুও তো আমার মেয়েটা আমার কাছে থাকবে।’

প্রতিবারের মত এবারও পরিবারের সাথে ঢাকাতেই ঈদ করছেন অভিনেতা নিরব। ‘ঈদে ঢাকার বাইরে খুব কমই যাওয়া হয়। ছোটবেলা থেকেই ঢাকায় ঈদ করি আমার পরিবারের সাথে। এবারও তার ব্যাতিক্রম কিছু ঘটবে না।’ বললেন নিরব।

ঈদে সবথেকে মজার মুহুর্ত শেয়ার করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘কোরবানি ঈদে গরু জবাই করে মাংস কাটতে খুব ভাল লাগে।’

ঢাকাতেই ঈদের সময়টা কাটাবেন অভিনেত্রী মেহজাবিন। বন্ধুদের সঙ্গে বিকালে বেড়াতে বেরুনোর সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

গ্রামের বাড়ি খুলনাতেই প্রতিবছর ঈদের সময়টা কাটান অভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ। এবারও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না। পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদের আনন্দ শেয়ার করতে ১৫ অক্টোবর খুলনা যাচ্ছেন তিনি। 2m

ঢাকায় পরিবারের সাথেই ঈদের উৎসব উৎযাপন করবেন অভিনেত্রী স্বাগতা। তার মতে, ‘ঈদ মানেই শান্তির ঘুম। পরিবারের সাথে থাকতে পারি অনেকটা সময় এটা ঈদের আনন্দের মধ্যে অন্যতম।’ ঈদে ভালোলাগার সময় সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘ ভালোলাগার মুহুর্ত বলতে পারব না তবে একটা তৃপ্তি অনুভব করি যখন মনে হয় আমাকে কেউ শটের জন্য ডাকে না। অর্থাৎ শুটিং এর জন্য আমার কোন পিছুটান থাকে না।’

শওকত আলী ইমন কৌতুকের সুরে বলেন, ‘আমি সারাজীবন ঢাকাতেই ঈদ করেছি। এবারও ঢাকাতেই ঈদ করছি। সারা বছর তো আমরা শিল্পীরা সামাজিকতার বাইরে অবস্থান করি। একমাত্র দু ঈদের সময় আমরা সামাজিক হয়ে যাই। তাই চেষ্টা করি ঈদের সময়গুলোতে পরিবার এবং বন্ধুবান্ধবদেরকে সময় দেওয়ার। আমার সবথেকে ভালোলাগে যখন আমি গরু জবাই করে কসাইকে ডিরেকশন দেই। এবং নিজে মাংস কাটাকাটি করি। যদিও এটা পশু জবাই অমানবিক কাজ। যেহেতু ধর্মে আছে পালন তো করতেই হবে।’

অভিনেত্রী নওশাবা বলেন ‘আগেরবারের মতই এবারও ঢাকায় পরিবারের সাথে ঈদ করব। ঈদের রুটিনের সবটুকু সময় জুড়ে থাকবে আমার মেয়ে আর রান্নাবান্না।’

সবথেকে আনন্দের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন , ‘ঈদের প্রতিটা সময় আমার ভালোলাগে কারণ এই সময়টুকু আমি নিজের মত করে সময় কাটাতে পারি।’

অন্যান্যদের মত ঢাকায় নিজ পরিবারের সাথে ঈদ উৎসব পালন করবেন অভিনেত্রী ভাবনা। ‘আমার সমস্ত আনন্দ পরিবারকেন্দ্রীক। তাই বাড়িতে থেকে মাকে সাহায্য করব এটাই আমার কাছে সবথেকে বেশি আনন্দের। তাছাড়া গরুর মাংস আমার খুব প্রিয়। বসে বসে মাংস খাওয়াটাও আমার আনন্দের তালিকায় পরে।’

3m2অভিনেত্রী ঈশানার মা দেশের বাইরে থাকাই এবারই প্রথম মাকে ছাড়া ঢাকায় ঈদ করবেন তিনি। তবে ঈদের পরেরদিনই তিনি কুমিল্লায় যাবেন তার আত্মীয়স্বজনের কাছে। ‘মাকে ছাড়া এই প্রথম ঈদ করছি তাই খুব ভালো হবেনা আমার এবারের ঈদ।’ ঈদে সবথেকে ভাল সময় সম্পর্কে জানান ‘ ঈদ উপলক্ষে বড়দের কাছ থেকে উপহার নিতে ভালোলাগে। আবার ছোটদেরকে ঈদ উপহার দিতেও ভালোলাগে।’

কণ্ঠশিল্পী কোনালের ঈদও এবার ঢাকায় তার পরিবারের সাথেই হবে বলে জানান তিনি। ঈদে তার কাছে মজার আর আনন্দের বিষয় হলো সকালবেলা উঠে গোসল করে নতুন জামা কাপড় পড়ে পরিবারের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করা। তিনি বলেন, ‘ সকাল বেলা শুভেচ্ছার সাথে ঈদ সালামি আদায় করার মজা করার আনন্দ আমি কখনোই মিস করি না।’

কণ্ঠশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদ এবং হাবিব ওয়াহিদ ঈদে ঢাকাতেই থাকছেন। তবে ফেরদৌস ওয়াহিদ ঈদের দিন বিকালে মুন্সিগঞ্জ জাবেন বলে জানান।

‘দাদা বাড়িতে ঈদ কোরার মজাই আলাদা। পরিবারকে নিয়ে এবারের ঈদটা গাজীপুর আমার দাদার বাড়িতে করব।’ বললেন কণ্ঠশিল্পী কনা।

ঈদ আনন্দের সময়ের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ ঈদ মানেই অবসর। ব্যস্ততার মাঝে যেটুকু অবসর সময় কাটাতে পারি তার পুরোটুকুই আমার ভালোলাগার মুহুর্তের মধ্যে পড়ে।’