মাংসখেকো মাদক!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:নতুন এক ধরনের মাদকের সন্ধান পাওয়া গেছে। যা গ্রহনের ফলে ব্যক্তির দেহের টিস্যু মরে গিয়ে মাংসে পচন ধরে। ধীরে ধীরে দেহের অন্যান্য অংশেও ছড়িয়ে পড়ে। মাংসখেকো নতুন এক মাদকের নাম ক্রোকোডিল।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা ও ইলিনয় অঞ্চলের চিকি‍ৎসকরা কয়েকটি রোগীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে নতুন এই মাদক আবিষ্কার করেন। আশংকা করা হচ্ছে, যুক্তরাষ্ট্রে দ্রুত এই মাদকের উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। এটা মহামারী আকারও ধারণ করতে পারে।

২০১০ সালে প্রথম রাশিয়ায় কয়েকশ মানুষের দেহে এই মাদক গ্রহনের ভয়াবহতা ধরা পড়ে।

এই নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মাদক নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (ডিইএ) গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। সংস্থাটি এক বার্তায় সেন্ট জোসেফ মেডিকেল কলেজ সেন্টারে ক্রোকোডিল মাদক সেবনের ভয়াবহ লক্ষ্মণের বিষয়ে অবগত রয়েছে বলে জানায়। দ্রুত এই মাদক নির্মূলে প্রাক-প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে।

ডিইএ ২০১১ সাল থেকে প্রথম এই মাদকের উপর নজর রাখছিলেন। কিন্তু তারা কখনোই ভাবতে পারেনি যে এটা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আঘাত হানবে।

কোডেইন নামক এক প্রকার ট্যাবলেট গরম করে এই মাদক প্রস্তুত করা হয়। এটা মাদক সেবনকারীদের হেরোইনের স্বাদ দেয়। সিরিঞ্জের মাধ্যমে একবার এই মাদক গ্রহণ করা হলে দেহের টিস্যু নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে দেহের মাংস পচে যায়।

তবে নতুন এই মাদক গ্রহনকারীরা কিছুই বুঝে উঠতে পারছেন না। তারা হেরোইন সেবনের করেছেন। ক্রোকোডিল নামে কিছু গ্রহন করেননি বলে তারা দাবি করেন।