মণিরামপুরে পাঁচ সূর্য সন্তান শহীদ হয়েছিলেন আজ

আব্দুল মতিন, মণিরামপুর :১৯৭১ সালের ২৩ অক্টোবর এই দিনে যশোরের মণিরামপুরে পাকহানাদার বাহিনীর হাতে এদেশের পাঁচ সূর্য্য সন্তান আসাদ, তোজো, শান্তি, মানিক ও ফজলু শহীদ হন। কিন্তু স্বাধীনতার ৪১ বছর পেরিয়ে গেলেও স্বাধীনতা পরবর্তী কোন সরকার এ সকল শহীদদের স্মৃতি রক্ষার্থে রাষ্ট্রীয়ভাবে কোন উদ্যোগ গ্রহন করেনি।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধচলাকালীন ২৩ অক্টোবর সকালে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রতেœশ্বরপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল স্বাধীনতাকামী নিরস্ত্র এ পাঁচ যুবক। কিন্তু পাকহানাদার বাহিনীর দোসর রাজাকারদের চোখ এড়াতে পারেনি তারা। স্থানীয় রাজাকার কমান্ডার আব্দুল মালেক ডাক্তারের নেতৃত্বে মেহের জল্ল¬¬াদ, ইসহাক, আব্দুল মজিদসহ বেশ কয়েকজন রাজাকার তাদের আশ্রয়স্থল চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে তাদেরকে আটক করে। এরপর তাদেরকে চোখ বেঁধে চিনাটোলা বাজারের পূর্বপাশে হরিহরনদীর তীরে নেয়া হয়। সেখানে নিয়ে বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে তাদের শরীরে লবণ দেয়াসহ তাদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়।
ওই নির্যাতনের প্রত্যক্ষদর্শীদের মধ্যে এখনও স্বাক্ষী হিসেবে বেঁচে আছেন চিনাটোলার শ্যামাপদ নাথ(৬৩)। তিনি জানান, ‘আমি সে সময় ২৫/২৬ বছরের টগবগে একজন যুবক ছিলাম। চিনাটোলা বাজারে কুলি শ্রমিকের কাজ করতাম। ওনদিন রাজাকারদের নির্দেশে  হয়, হরিহরনদীর ওপর ব্রিজ আমাকে পাহারা দিতে হবে। পাহারারত অবস্থায় দেখলাম চোখ বাঁধা অবস্থায় মুক্তিসেনা আসাদুজ্জামান আসাদ, তোজো, শান্তি, মানিক ও ফজলুর রহমান ফজলুকে ব্রিজের পাশে আনা হলো। তার কিছুক্ষন পর রাজাকার কমান্ডারের বাঁশি বেঁজে উঠার সাথে সাথে গর্জে ওঠে রাইফেল। মুহূর্তের মধ্যে পাঁচ তরতাজা যুবকের নিথরদেহ মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।
সরেজমিনে দেখা যায়, অযতœ-অবহেলায় পড়ে আছে শহীদদের সেই বধ্যভূমি।
শহীদ স্মৃতি সংরক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক কমরেড মশিয়ার রহমান বলেন, স্বাধীনতার পর শহীদদের স্মৃতি সংরক্ষণের জন্য বামদলের পক্ষ থেকে বধ্যভূমিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে। যেখানে প্রতিবছর ২৩ অক্টোবর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। কিন্তু রাষ্ট্রীয়ভাবে আজ পর্যন্ত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের কোন উদ্যোগ গ্রহন করা হয়নি।
এ ব্যাপারে মণিরামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার আলাউদ্দিন জানান, উল্লে¬খিত পাঁচ শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন এবং তাদের কবরসহ উপজেলার সকল শহীদদের স্মৃতি ও বদ্ধভুমি সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে দাবি জানানো হয়েছে।
প্রয়াতদের মৃত্যুবার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষে জাতীয় ছাত্রদল যশোর জেলা কমিটি সকাল ১০ টায় মণিরামপুর উপজেলার চিনাটোলাস্থ সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন ও বিকাল ৪ টায় যশোর দড়াটানা শহীদ চত্বরে স্মরণসভার আয়োজন করেছে। স্মরণসভায় সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মী-দরদী-সমর্থকদের যথা সময়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য বিশেষভাবে আহ্বান জানানো হয়েছে।