কালীগঞ্জের প্রতারক মোস্তাফিজ অবশেষে আটক

কালীগঞ্জ(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি:কখনও শিবির নেতা, কখনও পত্রিকার রির্পোটার, কখনওবা র‌্যাবের সোর্স পরিচয়ে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান থেকে মোবাইল ফোন, শার্ট, প্যান্ট, সাইকেল ও নগদ টাকা হাতিয়ে নিতো সে। অভিনব পদ্ধতিতে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসায়ী, শিক্ষক ও সাধারণ মানুষকে প্রতারণা করে হাজার হাজার টাকার পণ্য ও নগদ অর্থ হাতিয়ে নেয়া প্রতারক মোস্তাফিজ(১৬) এখন পুলিশের খাচায় বন্দি। প্রতারক মোস্তাফিজ উপজেলার বাকুলিয়া গ্রামের জাফর মোল্লার ছেলে।
শনিবার বিকেলে স্থানীয় ছন্দা মার্কেটের দুটি দোকান থেকে প্রতারণা করে শার্ট, প্যান্ট ও নগদ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার সময় স্থানীয় জনতা ধোলাই দিয়ে প্রতারক মোস্তাফিজকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
ছন্দা হলের সামনে সিজান গার্মেন্টেস-এর মালিক আক্তার হোসেন জানান মোস্তাফিজ মাহতাব উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমানের পরিচয় দিয়ে বলে, হঠাৎ সমস্যায় পড়েছি কিছু টাকা দরকার আমি একটি ছেলেকে পাঠাচ্ছি ওর কাছে টাকাটা দিলে উপকার হত। বিষয় খটকা লাগায় মোস্তাফিজ আসলে জিজ্ঞাসাবাদে প্রতারণার কথা স্বীকার করে।
ছন্দা মার্কেটের শিহাব গ্রার্মেন্টস-এর মালিক জানান, পত্রিকার সাংবাদিক পরিচয়ে তার গার্মেন্টস থেকে শার্ট, প্যান্ট নিয়ে টাকা দেয়নি।
ব্লেজন মোবাইল সিটির মালিক আশরাফ আলী রিন্টু জানান, প্রায় ছয় মাস আগে মাহতাব উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের এক শিক্ষকের পরিচয় দিয়ে ফোন দিয়ে প্রথম দিন ফ্লেক্সি নেয়। পরে ঐ শিক্ষকের পক্ষ থেকে মোস্তাফিজ টাকা পরিশোধ করে। অন্য একদিন একই ফোন থেকে কল করে একটি মোবাইল সেট মোস্তাফিজকে দিতে বলে। আমি সরল বিশ্বাসে তাকে দিয়ে দেই। অনেক দিন টাকা না পেয়ে ওই শিক্ষকের সাথে দেখা হলে টাকা চাইতে গিয়ে মোস্তাফিজের প্রতারণার শিকার হয়েছি বুঝতে পারি। এছাড়া বিভিন্ন সময় শিবির নেতা সেজে সাধারণ মানুষের কাছে শিবির কর্মীদের দুঃখ দুর্দশার কথা তুলে ধরে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে এক শিবির নেতা জানান।
কালীগঞ্জ থানার ওসি জানান, মোস্তাফিজুর রহমান র্দীর্ঘদিন বিভিন্ন বেশে প্রতারণা করে আসছিল।
থানার এস আই রফিক জানান, কালীগঞ্জের ছন্দা মার্কেটে প্রতারণার সময় মার্কেটের ব্যবসায়ীরা  বাকুলিয়া গ্রামের জাফর মোল্লার ছেলে মোস্তাফিজকে হাতে নাতে ধরে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে থানায় নেয় ।