‘নারী-পুরুষ বৈষম্য কমাতে ব্যর্থ পাকিস্তান’

নারী-পুরুষের বৈষম্য কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে ব্যর্থ দেশগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান।
ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ) শুক্রবার এ সংক্রান্ত একটি তালিকা প্রকাশ করে। তালিকায় ১৩৬টি দেশের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে ইয়েমেন। আর এর ঠিক আগেই পাকিস্তান রয়েছে বলে দ্য ডন জানিয়েছে।
প্রসঙ্গত, এই ১৩৬টি দেশেই বিশ্বের ৯৩ শতাংশ জনগণের বসবাস।
রাজনীতিতে অংশগ্রহণ, অর্থনৈতিক সমতা, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার মতো অধিকারের ওপর ভিত্তি করে প্রস্তুত করা নারী-পুরুষের বৈষম্য কমানোর এই তালিকায় সবচেয়ে ভাল অবস্থায় অর্থাৎ শীর্ষ তিনটি দেশ হচ্ছে যথাক্রমে আইসল্যান্ড, ফিনল্যান্ড ও নরওয়ে।
ডব্লিউইএফ এর প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই গত বছর নারী-পুরুষের ব্যবধান কিছুটা কমেছে। আর টানা পঞ্চমবারের মতো এই তালিকায় শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে আইসল্যান্ড।
তবে কেবলমাত্র মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর আফ্রিকা অঞ্চলে গত বছর নারী-পুরুষের বৈষম্যমূলক অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি।
উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে নারী-পুরুষ সমতার দিক দিয়ে এগিয়ে রয়েছে এশিয়ার ফিলিপাইন ও মধ্য আমেরিকার দেশ নিকারাগুয়া। দুটো দেশই শীর্ষ ১০ এর মধ্যে আছে।
গত আট বছর ধরে এ সংক্রান্ত বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে আসছে ডব্লিউইএফ।
ডব্লিউইএফ এর ‘গ্লোবাল জেন্ডার গ্যাপ রিপোর্ট-২০১৩’ তে দেখা গেছে, অর্থনৈতিক কার্যক্রমে নারী-পুরুষের অংশগ্রহণ এবং সুযোগের বৈষম্যের ক্ষেত্রে পাকিস্তান দ্বিতীয় ব্যর্থ রাষ্ট্র। শিক্ষার সুযোগ পাওয়ার সমতার ক্ষেত্রে অষ্টম ব্যর্থ এবং স্বাস্থ্য সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে নিচের দিক থেকে ত্রয়োদশতম দেশ।