বাঁকড়ায় ক্ষ্যাপা বাউল তিরোধান দিবস আজ

এম আলমগীর, বাঁকড়া: আজ ১৩ কার্তিক যশোরের ক্ষ্যাপা বাউল তিরোধান দিবস। দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবারের ন্যায় এবারও দুইদিন ব্যাপি কর্মসূচি করলেও কবি স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে বৈরি আবহাওয়া ও হরতালের কারনে অনুষ্ঠানের কলেবর ছোট করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে কবি সমাধি বাঁকড়ায় দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে ভক্ত, কবি সাহিত্যিক রাজনৈতিক গবেষকবৃন্দ সমাবেশ হবে কবি সমাধিতে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ক্ষ্যাপা কানাই শাহ ১৩০৩ সালে ৩ ভাদ্র নিতি কপোতাক্ষ নদের তিরে বাঁকড়া গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। যশোরের নন্দিত ক্ষ্যাপা এ বাউল একতারা হতে ভরাট গলায় বিগত বাংলা ১৪০০ শতকের মাঝামাঝি সময় এপার ওপার বাংলায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে এক চেটিয়া প্রাধান্য ছিলো। তিনি জাতীয় বেতার টিভিতে অনেক অনুষ্ঠান করেছেন। ১৯৮৩ সালে তৎকালীন ভারতের ইন্দ্রিয়া সরকারের আমন্ত্রণে ছয় সদস্য বাউল শিল্পী দলের নেতৃত্ব দিয়ে শান্তি নিকেতন থেকে বাংলার ক্ষ্যাপা বাউল উপাধি লাভ করেন। ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ লোক মেলায় ফোকলোর পরিষদে চার দিনব্যাপি অনুষ্ঠানের সেরা বাউল নির্বাচিত হন।
যশোরের খ্যাতিমান গবেষণা ধর্মী লেখন অধ্যাপক সফিয়ার রহমান বাউল কবি কানাই শাহ জীবন ও গান নামে একটি গ্রন্থ প্রকাশ করেন। ক্ষ্যাপা বাউলের অনেক অজানা তথ্য তার রচনাবলি তিনি অনেকটা উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি বাংলার ১৩৯৮ সালের ১৩ কার্তিক বাঁকড়ায় নিজ গৃহে মৃত্যুবরণ করেন।
আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আজ ২২ তম তিরোধান দিবসে বৈরি আবহাওয়া ও হরতালের কারণে বিকেলে আলোচনা, দোয়া, কবি রচিত পদ ও রাতভর বাউল গানের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত করা হবে।