সাতমাইল বাজারে হরতাল সমর্থকদের সাথে আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ ভাংচুর, আহত ১০

নিজস্ব প্রতিবেদক:হরতালের প্রথম দিন রোববার যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর ইউনিয়নের বারীনগর সাতমাইল বাজারে আওয়ামীলীগ বিএনপি জামায়াতের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এছাড়া বাজারের একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর ও ১টি মটর সাইকেল ভাংচুর করে হামলাকারীরা। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। সৃষ্ট ঘটনাটি নিয়ে এখনো বাজারে দু’গ্র“পের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। দলীয় নেতাকর্মীদের হামলার প্রতিবাদে ঘটনার পরেই স্থানীয় আওয়ামীলীগ বারীনগর বাজারে প্রতিবাদ মিছিল বের করে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রোববার ভোরে বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মীরা হরতাল পালনের লক্ষ্যে স্থানীয় হৈবতপুর ইউনিয়নের বারীনগর সাতমাইল বাজারে লাঠি, হাসুয়া, রামদা, চাপাতি, হাতবোমা নিয়ে জড়ো হতে থাকে। খবর পেয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা ও তাদের প্রতিহত করতে প্রস্তুতি নেয়। এ সময় হঠাৎ শিবির কর্মীরা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে ৪টি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। মুহূর্তের মধ্যেই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় গ্র“পের  নেতাকর্মীরা। এ সময় হৈবতপুর ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি শাহাজান আলী আহত হলে সংঘর্ষ আরো ভয়াবহ আকার ধারন করে। এ সময় উভয় গ্র“পের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। গুরুত্বর আহত অবস্থায় আওয়ামীলীগ নেতা শাহাজান আলী, শিবির কর্মী মনিরুল ইসলাম মনির কলেজ ছাত্র শিমূল হোসেনকে যশোর মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করা হয়েছে। এছাড়া সংঘর্ষের সময় হামলা কারীরা আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সালামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এছাড়া হামলাকারীরা শাহাজানের ফলের দোকান, মামুনের মোবাইলের দোকান, স্থানীয় ইউপি অফিস, ইজ্জত আলী মাকের্টে ব্যাপক ভাংচুর করে। এছাড়া হামলাকারীরা মথুরাপুর গ্রামের ইউপি সদস্য বিল্লাল হোসেনের মটরসাইকেলটি ভাংচুর করে দীর্ঘ দু’ঘন্টা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার পর বিএনপির জামায়াতের নেতাকর্মীরা পিছু হঠতে বাধ্য হয়। খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছায়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের অভিযোগ কোন কারণ ছাড়াই শিবিরের নেতাকর্মীরা তাদের উপর হামলা চালায়। অবশ্য বিএনপি জমায়াতের নেতাকর্মীদের অভিযোগ, তাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়। এ ব্যাপারে হৈবতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিরাজুল ইসলাম জানান, সৃষ্ঠ ঘটনার জন্য বিএনপি জামায়াতের ক্যাডাররা দায়ি। তারা পরিকল্পিত ভাবে বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়েই আওয়ামলীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়ে ছিলো। এ ব্যাপারে স্থানীয় বিএনপির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি জানান, আমাদের শান্তিপ্রিয় কর্মসূচীতে আওয়ামীলীগের সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের আহত করা সহ বাজারে ব্যাপক ভাংচুর ও লুঠপাট চালায়। এদিকে হরতালের প্রথম দিনে শান্তিপূর্ণ ভাবে হরতাল পালিত হয়েছে চুড়ামনকাটি বাজারে। সকাল থেকে দিনব্যাপী বিএনপি জামায়াতের নেতাকর্মীরা বাজারে উপস্থিত থেকে হরতাল পালন করে।