কালীগঞ্জে স্কুলছাত্রী লিমার বিয়ে বন্ধ করলো উপজেলা প্রশাসন

কালীগঞ্জ(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি:সাহেলা খাতুন লিমা (১৪) চাপরাইল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী। আগামী ৪ নভেম্বর থেকে তার জেএসপি পরীক্ষা শুরু হবে। পরীক্ষার প্রস্তুতিও নিয়েছে সে। কিন্তুু এরই মধ্যে পরিবারের অভিভাবকরা তার বিয়ে ঠিক করে। বুধবার  উপজেলার চাপরাইল গ্রামের শহিদুল ইসলাম টিটোর মেয়ের সাথে মহেশপুর উপজেলার কাঁচামাল ব্যবসায়ী মুকুলের বিয়ের দিন ধার্য করা হয়। মেধাবী ছাত্রী লিমা পড়াশুনা করতে চায়। ছাত্রী হিসেবে ভাল হওয়ায় স্কুল শিক্ষকরাও বিয়েতে বাধা সৃষ্টি করে। কিন্তু পরিবারের সদস্যরা তাদের সিদ্ধান্তে অনড়।
এমন অবস্থায় খবর পেয়ে বিকেলে কালীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও সোনার বাংলা ফাউন্ডেশন বাল্যবিয়েটি বন্ধ করে দেয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এরাদুল হক জানান, বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে তিনি প্রতিনিধি হিসেবে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা আয়নাল হোসেন ও সোনার বাংলা ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শিবুপদ বিশ্বাসকে চাপরাইল গ্রামে পাঠান। তারা গিয়ে মেয়ের পরিবারের সদস্য ও স্কুল ছাত্রীকে বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে অবগত করেন এবং পরিবারের সদস্যরা  লিমার বাল্যবিয়ে দেবে না মর্মে মুচলেকা দেন।