ন্যান্সির বাড়িতে সন্ত্রাসী খুঁজতে গেল পুলিশ!

কণ্ঠশিল্পী ন্যান্সির নেত্রকোণার বাড়িতে সন্ত্রাসী খুঁজতে গিয়েছিলো পুলিশ। মঙ্গলবার মাঝরাতে নেত্রকোণা সদর থানা পুলিশের একটি দল তার থাকার ঘর সার্চ করতে যায়। ন্যান্সি সন্ত্রাসী পুষেন এমন অভিযোগে তার বাড়িতে সার্চ করার কথা জানায় পুলিশ। এ নিয়ে ন্যান্সির সাথে পুলিশ বাজে ও আপত্তিকর আচরণ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন এই কণ্ঠশিল্পীর।
ন্যান্সি বলেন, মঙ্গলবার রাত সোয়া একটার দিকে ন্যান্সির নেত্রকোণার বাড়িতে ২৫ থেকে ৩০ সদস্যের একটি দল প্রবেশ করে। যদিও বর্তমানে ন্যান্সি থাকেন তার শ্বশুরবাড়ি ময়মনসিংহে। সেখানে শুধু তার ছোটভাই সানি থাকেন।
পুলিশ সানিকে জানান, তারা ন্যান্সির ঘর সার্চ করবেন। বিষয়টি ন্যান্সিকে ফোনে জানালে তিনি পুলিশের সাথে কথা বলেন। পুলিশ জানায়, গোপন ও বিশ্বস্ত সূত্রে তাদের কাছে খবর আছে ন্যান্সি সন্ত্রাসী পালেন। এখন তার বাড়িতে তল্লাশি করা হবে। কোন সার্চ ওয়ারেন্ট আছে কিনা জিজ্ঞেস করা হলে পুলিশ জানায়, বিশেষ পরিস্থিতিতে সার্চ ওয়ারেন্ট লাগে না। এ সময় ন্যান্সি ওয়ারেন্ট ছাড়া তার ঘরে ঢুকতে দেবেন না বলায় পুলিশের ওই সদস্য ফোনে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। এবং বিষয়টি ভলো হবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন।
পরবর্তীতে ন্যান্সিকে আলমগীর নামে এক এসআই ফোন দেন। তিনিও খুব উত্তেজিত হয়ে ‘ওই মাইয়া’ স্বরে কথা বলেন। একপর্যায়ে কয়েকজন পুলিশ তার বাসার ছাদে উঠে পরে। ফোনে ন্যান্সিকে পুলিশ বলে, এখন আর শুধু সন্দেহ না, আমরা নিশ্চিত এখানে সন্ত্রাসী আছে।
এরপর ন্যান্সি পুলিশকে বলেন, ওয়ারেন্ট আর আমার অনুমতি ছাড়া ঘর ভাঙার আইন যদি থাকে তবে আপনারা ঢুকেন। এর পর পুলিশ জানায়, আমরা জানতাম না আপনি অসহযোগিতা করবেন। নয়তো ঘর ভাঙার জিনিসপত্র নিয়েই আসতাম। এরপর রাত তিনটার দিকে পুলিশ চলে যায়।
ঘটনার সময় উপস্থিত থাকা ন্যান্সির ভাই দু-তিনজন পুলিশকে নেত্রকোণা সদর থানার এসআই বলে চিনতে পারার কথা জানিয়েছেন বোন ন্যান্সিকে।
কয়েকদিন আগে ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে নিজের রাজনৈতিক অবস্থান পরিষ্কার করেন ন্যান্সি। সেখানে বিএনপিকে সমর্থন করার কথা জানান তিনি। এরপর থেকে ফোনে, ফেসবুকে এবং উড়ো ভাবে অনেকে কয়েকদিন ধরে ন্যান্সিকে হুমকি দিচ্ছিল বলে জানিয়েছেন ন্যান্সি।