খালেদার নির্দেশে একাত্তরের মতো হত্যা হয়েছে: হাসিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক:সাম্প্রতিক সহিংসতার দিকে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনী যেভাবে গণহত্যা করেছিল এবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নির্দেশে একইভাবে হত্যা-লুটপাট হয়েছে।

রোববার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনকে ইঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, “উনি কিসের রাজনীতি করেন, কিসের দল করেন। আন্দোলনে মানুষ সম্পুক্ত করতে হয়। উনি মানুষ হত্যা করেন। ’৭১ এ পাকিস্তানি বাহিনী যেভাবে করেছিল এবার তার নির্দেশে একইভাবে হত্যা-লুটপাট হয়েছে।”

বিএনপির জোটসঙ্গী জামায়াতে ইসলামীর সহিংস কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই কক্সবাজারে বৌদ্ধদের মন্দির পুড়িয়েছে। কোরানে আছে, যার যার ধর্ম তার তার কাছে। জামাত ইসলাম কিসের ইসলাম? বায়তুল মোকাররমের ভিতর আগুন দিয়েছে, শত শত কোরান পুড়িয়েছে। এই হলো তাদের রাজনীতি।”

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের আন্দোলনে সহিংসতার প্রসঙ্গ তুলে ধরে তিনি বলেন, “নির্বাচন বন্ধের জন্য স্কুলে আগুন দিয়েছে। সাধারণ মানুষ হত্যা করেছে। পুলিশ-বিজিবি সদস্য হত্যা করেছে।

“আপনিই তো বলেছিলেন আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচনে যাবেন না। ঠিকই তো উপজেলা নির্বাচনে যাচ্ছেন। তাহলে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করলেন কেন? এর জবাব দিতে হবে।”

সহিংসতাকে এদেশের মানুষ প্রশ্রয় দেবে না মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “কী অধিকার আছে মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলার। ছেলেদের শিখেয়েছেন চুরি করা আর লুটপাট-সন্ত্রাস। স্পষ্ট করে বলতে চাই, মানুষের গায়ে হাত দেবেন না। মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলবেন না। মানুষ তা বরদাশত করবে না।”

বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন, “বিএনপি নেত্রী বলেছিলেন ১০০ বছরেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে না। আমি নাকি প্রধানমন্ত্রী তো দূরের কথা বিরোধী দলীয় নেত্রীও হতে পারবো না। কি হলো- আল্লাহর মাইর দুনিয়ার বাইর। রাখে আল্লাহ মারে কে।

“উনি বলেন ২১ আগস্ট না কি আমি গ্রেনেড মেরেছিলাম। উনাদের একটু গুণ আছে- ভালো মিথ্যা বলতে পারেন। যেটাই বলেন মিথ্যা বলেন।”

নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়ার সঙ্গে টেলিফোন কথোপকথনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “উনাকে বললাম, ছেলেমেয়েদের পরীক্ষা আপনি হরতাল বন্ধ করেন। উনি বললেন, হরতাল করবেনই।

“এর অবশ্য কারণ আছে। উনি এসএসসি পাস করতে পারেননি। উনি পাস করেছিলেন উর্দু আর অঙ্কে। অঙ্কে পাস করেছিলেন কারণ টাকাটা গুনতে হবে। আর উনার মনে পেয়ারা পাকিস্তান তাই উর্দুতে পাস করেছিলেন।”

বিগত মহাজোট সরকারের মেয়াদে কক্সবাজারের উন্নয়নে নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।