বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্ব জোরদার করতে জনকল্যাণমূখী প্রকল্প

বরগুনা : ভারতীয় হাই কমিশনার পংকজ শরণ বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্ব জোরদার করতে এ দেশের জনগণের কল্যাণে কাজ করবে এমন প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে। এসব প্রকল্পের মাধ্যমে ভারত-বাংলাদেশের বন্ধু প্রতীম ভাবের প্রকাশ পাবে।

রোববার দুপুরে ভারতের সহযোগিতায় বরগুনায় ২০০ গভীর নলকূপ বসানো কার্যক্রমের উদ্বোধন শেষে এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

পংকজ শরণ বলেন, পানি সমস্যা ভারতেও রয়েছে, তাই সবাই মিলে এ সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করছি এবং এ নলকূপ প্রকল্পের মাধ্যমে বরগুনার মানুষের পানির সমস্যা সমাধান হবে।

সম্ভব হলে এ ধরনের আরও প্রকল্প নেওয়া হবে বলেও জানান হাই কমিশনার। এর পাশাপাশি ভবিষ্যতে সুযোগ পেলে বরগুনার শিক্ষা-স্বাস্থ্যের উন্নয়নে কাজ করবে হাইকমিশন।

ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন, ভারত-বাংলাদেশের ভিসা সংক্রান্ত সব জটিলতা এড়ানোর চেষ্টা চলছে। ঢাকায় ফিরে ভিসা জটিলতার ব্যাপারে সুষ্ঠু সমাধান বের করার চেষ্টা করা হবে। বরগুনার মানুষ যাতে সহজে ভিসা সুবিধা পায় সেজন্য ভিসার অফিস বরিশাল অথবা সহজলভ্য স্থানে হতে পারে তা খুঁজে বের করা হবে।

undefined

পংকজ শরণ বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরারত জেলেদের ব্যাপারে বলেন, যারা মাছ ধরতে গিয়ে ভারতে আটকা পড়ে তাদের ব্যাপারটিও গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।

দুপুর ১টা ৫ মিনিটে তিনি হেলিকপ্টারে করে বরগুনার সার্কিট হাউজ মাঠে অবতরণ করে সদর উপজেলার ৭নম্বর ঢলুয়া ইউনিয়নের বড়ইতলা ফেরিঘাটে নলকূপ বসানো কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

এরপর বরগুনা জেলা প্রশাসক আবদুল ওয়াহাব ভূইয়ার সভাপতিত্বে সুধী সমাজের সঙ্গে এক আলোচনা সভায় পংকজ শরণ প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বরগুনা-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, ভারতীয় হাই কমিশনের কাউন্সিলর সুজিত ঘোষ, পি মাসাকুই, পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ, বরগুনা জেলা পরিষদের প্রশাসক জাহাঙ্গীর কবির, ঢলুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল হক স্বপন, বরগুনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাফিজ প্রমুখ। এরপর তিনি বরগুনা ত্যাগ করেন।