ইয়ানুকোভিচের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

ইউক্রেইনের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।
দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরসেন আভাকভ এ ঘোষণা দিয়েছেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।
ফেইসবুকে দেয়া এক পোস্টে আভাকভ জানান, জনাব ইয়ানুকোভিচ ও অন্যান্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ‘শান্তিপ্রিয় জনগণের ওপর গণহত্যা’ চালানোর অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
আভাকভ বলেন, ইয়ানুকোভিচকে রোববার ক্রিমিন উপত্যকার বালাক্লাভায় দেখা গেছে। সেখান থেকে তিনি গাড়িতে করে তিনি সহযোগীদের নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে চলে গেছেন।
এরআগে দেশটির পার্লামেন্টে ভোটাভুটির মাধ্যমে আইনপ্রণেতারা ইয়ানুকোভিচকে ক্ষমতাচ্যুত করে। তার একদিন স্পিকার ওলেক্সান্দর তুর্কিনোভকে অন্তর্র্বতী প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করা হয়।
২০১৩ সালের নভেম্বরের শেষদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি বাণিজ্য চুক্তিতে না গিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে বড় অংকের ঋণ নেন ইয়ানুকোভিচ। এরপর থেকে তার সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে, যা গত দুদিন ধরে ব্যাপক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নেয়।
বৃহস্পতিবার রাজধানী কিয়েভের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত স্বাধীনতা চত্বরে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলিবর্ষণ করে পুলিশ, যাতে অনেক মানুষ হতাহত হন।
মঙ্গলবার থেকে দেশটিতে বিক্ষোভ সহিংসতায় পুলিশ ও বিক্ষোভকারীসহ অন্তত ৭৭ জন নিহত হয়েছেন বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।
হতাহতের এ ঘটনার পর শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যস্থতায় সরকার ও বিরোধীদের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠান নিয়ে চুক্তি হয়।
সিরিয়ায় আত্মঘাতী হামলায়
জ্যেষ্ঠ বিদ্রোহীনেতা নিহত
আল কায়েদার সঙ্গে সম্পৃক্ত সিরিয়ার বিদ্রোহীদের একজন জ্যেষ্ঠ নেতা আলেপ্পোয় আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হয়েছেন।
আবু খালেদ আল সুরি নামের ওই নেতা তার বিদ্রোহী জঙ্গি গোষ্ঠী আহরার আল-শামের ঘাঁটিতে চালানো আত্মঘাতী হামলায় অন্য আরো কয়েকজনের সঙ্গে নিহত হন বলে বিবিসি জানিয়েছে।
অপর একটি বিদ্রোহী জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট অব ইরাক এন্ড দ্য লাভান্ত (আইএসআইএস) এই হামরার জন্য দায়ী বলে ধারণা করা হচ্ছে।
আইএসআইএস সিরিয়ার বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে আধিপত্য প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছে।
চলতি বছরের জানুয়ারি থেকেই গোষ্ঠীটি অন্য বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সহিংসতায় লিপ্ত হয়েছে। এসব সংঘর্ষে উভয়পক্ষেরই শত শত বিদ্রোহী যোদ্ধা নিহত হয়েছেন।
আহরার আল-শাম কট্টরপন্থী প্রথম সারির বিদ্রোহীজঙ্গি গোষ্ঠী। এই গোষ্ঠীটি ইসলামিক ফ্রন্ট নামে সাতটি বিদ্রোহী গোষ্ঠীর শক্তিশালী জোটের অন্তর্ভুক্ত।
বিদ্রোহীদের সূত্রে জানা গেছে, আলেপ্পোয় আহরার আল-শামের ঘাঁটিতে এক বা একাধিক ব্যক্তি এই আত্মঘাতী হামলাটি চালিয়েছে।
আল-সুরিকে সিরিয়ায় নিযুক্ত আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আল কায়েদার প্রধান প্রতিনিধি মনে করা হয়।
তিনি আইএসআইএস’র জন্য ক্রমশ বড় ধরনের হুমকি হয়ে উঠছিলেন বলে জানা গেছে।
ধারণা করা হয় আল-সুরির প্রকৃত নাম মুহাম্মাদ বাহাইয়াহ। তিনি আল কায়েদার হয়ে আফগানিস্তান ও ইরাকে মার্কিনিদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন। এবং আল কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন।
প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করতে সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সশস্ত্র লড়াই করছে কয়েকটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী। ২০১১ সাল থেকে চলমান এ যুদ্ধে এক লাখেরও বেশি মানুষের প্রাণহানি হয়েছে বলে জাতিসংঘ জানিয়েছে।
জাতিসংঘের পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশটির গৃহযুদ্ধে ৬৫ লাখ মানুষ বাস্ত্যুচ্যুত ও ২৫ লাখেরও বেশি মানুষ তালিকাভুক্ত শরণার্থীতে পরিণত হয়েছেন।