তালবাড়িয়া মাধ্য. বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ

মিরাজুল কবীর টিটো:যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওসমান গনির বিরুদ্ধে এন্তার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে গ্রামবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
স্কুল কমিটির প্রাক্তন সদস্য তরিকুল ইসলাম রতন অভিযোগ  করেছেন, বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র বানানোর জন্য চেরাই করা ১৫২ সেফটি শিশু ও মেহগনি কাঠ ছিল। সেই কাঠ কমিটির অনুমতি ছাড়া প্রধান শিক্ষক ওসমান গনি বাসায় নিয়ে কাজে ব্যবহার করছে। সেই সাথে তিনি স্কুলের দুটি সিলিং ফ্যান নিয়ে নিজ বাসায় ব্যবহার করছেন । এর দুই বছর আগে প্রধান শিক্ষক ওসমান গণি লাখ লাখ টাকা নিয়োগ বাণিজ্য করেছেন। কিন্তু একটি টাকা তিনি স্কুল ফান্ডে জমা দেননি। একই সাথে তিনি নিয়ম বহির্ভূতভাবে বিদ্যালয়ে রক্ষিত ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণীর সরকারি ৪৩ মণ বই ও খাতা বিক্রি করে দিয়েছেন। ওই সময় তৎকালীন কমিটি প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন। যার স্মারক নং-১/২০১২। তারিখ ০৫-০৭-১২। তখন তিনি কমিটির সভাপতির কাছে অপরাধ করবে না বলে অঙ্গীকার করে রক্ষা পান। কিন্তু চলতি বছরে প্রধান শিক্ষক ওসমান গনি গাছ চুরিসহ স্কুলের ফ্যান নিজ বাসায় ব্যবহারের ঘটনা ঘটিয়েছেন। প্রধান শিক্ষকের অপকর্মে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে গ্রামবাসী। এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে প্রধান শিক্ষক ওসমান গণি বলেন, তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ সত্য নয়। একটি কুচক্রী মহল তার সম্মান নষ্ট করার জন্য মিথ্যে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে স্কুলের বর্তমান সভাপতি মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, নিয়োগ বাণিজ্যের টাকা তিনি স্কুল কাণ্ডে জমা দেননি বলে সত্যতা পেয়েছি। সেই সাথে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ যাচাই বাছাই করা হচ্ছে।  সত্যতা পাওয়া গেলে স্কুলের সভায় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।