মালালা হত্যাপ্রচেষ্টায় জড়িতদের ৮ জনকে ‘গোপনে মুক্তি’

পাকিস্তানি কিশোরী ও নারীশিক্ষা আন্দোলন কর্মী মালালা ইউসুফজাই হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ১০ জনের মধ্যে ৮ জনেরই গোপনে মুক্তির খবর পাওয়া গেছে।

বিবিসি জানায়, এপ্রিলে পাকিস্তানের কর্মকর্তারা মালালা হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় ১০ তালেবান যোদ্ধার দোষী সাব্যস্ত হওয়া এবং ২৫ বছরের কারাদণ্ড পাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু এখন কয়েকটি সূত্র বিবিসি’কে জানিয়েছে, বিচারে মাত্র দুইজন দোষী সাব্যস্ত হয়।

বাকি আট জনকে প্রমাণের অভাবে মামলা থেকে খালাস দেয়া হয়েছে বলে শুক্রবার জানিয়েছেন লন্ডনে পাকিস্তানি হাই কমিশনের মুখপাত্র মুনীর আহমেদ।

পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার পুলিশ প্রধান সালিম মারওয়াতও আলাদা এক খবরে মালালা হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় মাত্র দুইজন দোষী সাব্যস্ত হওয়ার কথা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন।

মালালাকে হত্যার চেষ্টায় জড়িতদের বিচারকে ঘিরে গোপনীয়তা এবং রুদ্ধদ্বার বিচারের কারণে এর রায় নিয়ে ধোঁয়াশা ছিল।

বিচারের এক মাসেরও বেশি সময় পর শুক্রবারই প্রথম জানা গেছে যে, আদালতের বিচারে ২০১২ সালে মালালার মাথায় গুলি করা দুই ব্যক্তি দোষী সাব্যস্ত হয়েছে।

এর আগে ওই দুই বন্দুকধারী এবং হামলার নির্দেশ যিনি দিয়েছিলেন তিনিও আফগানিস্তানের পালিয়ে আছেন বলে ধারণা করা হয়ে আসছিল।

তবে লন্ডনে পাকিস্তানি হাই কমিশনের মুখপাত্র মুনীর আহমেদ বলছেন, আদালতের বিচারে প্রকৃতই দুইজন দোষী সাব্যস্ত হওয়ার বিষয়টি পরিষ্কার করা হয়েছিল। কিন্তু এ বিষয়ে ভুল সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে বলে দোষারোপ করেন তিনি।

কিন্তু মালালার মামলায় বিচার শেষের পরপরই সোয়াতের সরকারি কৌসুলি সাঈদ নাঈম জানিয়েছিলেন, ১০ জঙ্গির প্রত্যেকেরই ২৫ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে। এটি পাকিস্তানের সন্ত্রাস বিরোধী আদালতের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়।

পরে লন্ডনের ‘ডেইলি মিরর’ পত্রিকার সাংবাদিকরা পাকিস্তানের কারাগারে সাজাপ্রাপ্ত ১০ জঙ্গির খোঁজ করতে গেলে বাকীদের মুক্তি পাওয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে।