মহম্মদপুরে যৌতুক দিতে না পেরে জখম হয়ে পালিয়ে এলেন গৃহবধূ রেখা

মহম্মদপুর (মাগুরা)প্রতিনিধি:
বাবার বড়ি থেকে যৌতুকের টাকা এনে দিতে না পারায় গৃহবধূ রেখা (২৫) কে স্বামী বাচ্চু জমাদ্দার লাঠি দিয়ে বেধড়ক পিটিয়েছেন। চোখসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় গুরুতর জখম নিয়ে তিনি শশুরালয় থেকে পালিয়ে মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা সদরে দীঘা গ্রামে বাবার বাড়িতে চলে আসেন। পরে শনিবার সকাল ১০ টার দিকে তার স্বজনেরা মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. কাজী আবু আহসান জানান, গৃহবধূর অবস্থা শুরুতর।
রেখার বড়ভাই রেজাউল আলম জানান, ১৫ বছর আগে বড়রিয়ার মৃত আবজাল জমাদ্দারের ছেলে বাচ্চু জমাদ্দারের সঙ্গে তার বোনের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় আলোচনা সাপেক্ষে চাহিদা অনুযায়ি যৌতুক বাবদ নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও গৃহস্থালি সামগ্রী প্রদান করেন। তারপরও নতুন করে যৌতুকের জন্য বিভিন্ন সময়ে তার বোনের উপর নির্যাতন অব্যাহত রাখেন। বোনের সুখের কথা ভেবে প্রায়ই বোনজামাইকে টাকা দেওয়া হতো ।
ঘটনার সময় শনিবার সকালে বাচ্চু জমাদ্দার রেখাকে পুনরায় যৌতুক বাবদ ৫০ হাজার টাকা এনে দিতে বলে । এসময় রেখা টাকা এনে দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তখন তার বাড়িতে রেখাকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিঠ করে এবং মারপিটের সময় জানায় আমি আরো একটা বিয়ে করেছি তুই টাকা এনে দে নইলে বাড়ি ছেড়ে চলে যা আমি আমার নতুন বউকে ঘরে তুলবো। পিটিয়ে তার শরীরের চোখসহ বিভিন্ন জায়গায় গুরুতর জখম করে। লাঠির আঘাতে গৃহবধুর শরীরের মাথা, চোখ,পিঠ, ঘাড় ও হাত-পায়ের বিভিন্ন অংশে থেতলে গেছে। পরে রেখা প্রতিবেশিদের সহযোগিতায় বাবার বাড়ি পালিয়ে এসে হাসপাতালে ভর্তি হন। তার ঘরে ৪ টি ছেলে সন্তান রয়েছে। এই ঘটনার পর থেকে স্বামী বাচ্চু জমাদ্দার পলাতক রয়েছেন বলে জানা যায়।
গৃহবধূ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এ প্রতিবেদকের কাছে স্বামীর নির্যাতনের লোমহর্ষক বর্ণনা দেন। কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি স্বামীর বিচার দাবি করেন।
মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ কাজী আবু আহসান বলেন, গৃহবধুকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসা না করালে বা চোখের দৃষ্টি শক্তি নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
পলাতক থাকায় একাধিক বার যোগাযোগ করে গৃহবধুর স্বামী ও শশুরবাড়ির কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
মহম্মদপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আতিয়ার রহমান বলেন অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।