চায়ের দোকানে পাসপোর্ট অফিস !

গোলাম মোস্তফা, রূপদিয়া (যশোর) :
আর যশোর কিংবা ঢাকা নয় এখন থেকে কোন ঝামেলা ছাড়াই রূপদিয়া বাজারের এক চায়ের দোকান থেকে পাওয়া যাবে মেশিন রিডেবল (এম,আর,পি) পাসপোর্ট ! শুধু তাই নয় এখানে সাধারণ ও ‘আর্জেন্ট’ পার্সপোর্ট তৈরি করা হয়। এমনি সব লেখা সম্বলিত সাইন বোর্ড দেখে হতবাক এলাকাবাসী। এলাকার সাধারণ পাসপোর্ট প্রত্যাশীদের কোন ঝামেলা ছাড়াই সহজেই রূপদিয়া থেকে পাসপোর্ট করিয়ে দেওয়ার মত-মহত এ কাজটির দফতর খুলে বসেছে সদর উপজেলার চাউলিয়া গ্রামের মৃত নোয়াব আলী মোল্লার মালয়েশিয়া থেকে কারাদন্ড ভোগ করে আসা ছেলে আব্দুল ওহাব মোল্লা। প্রশাসন যখন যশোরের একমাত্র আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে দালাল মুক্ত করার অভিযান অব্যাহত রেখেছে ঠিক তখনি রূপদিয়া বাজারে চায়ের দোকানে এক প্রকার ঢাক-ঢোল পিটিয়ে চায়ের দোকানে টাঙানো পাসপোর্ট অফিসের সাইন বোর্ড দেখে অবাক হয়েছে অনেকে। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, যশোর সদর উপজেলার রূপদিয়া বাজারে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে শাহাদাৎ এর চায়ের দোকানে অবাক করা পাসপোর্ট অফিস নামের একটি সাইন বোর্ড টাঙানো। জানা যায়, আব্দুল ওহাব মোল্লা নামের ঐ লোক গত ৪/৫ মাস আগে অবৈধ্যভাবে মালয়েশিয়া যেয়ে জেল খেটে বাড়ি এসেছে। দেশে এসে গত ৩/৪ দিন হলো পাসপোর্ট অফিস নামের এই সাইন বোর্ড লাগিয়ে চায়ের দোকানের এক কোনে দপ্তর সাজিয়ে বসেছে। তাতে বড়-বড় অক্ষরে লেখা রয়েছে পাসপোর্ট অফিস। ‘এখানে সাধারণ ও ইর্মাজেন্সি পাসপোর্ট করা হয়।” পাসপোর্ট প্রত্যাশী সেজে রূপদিয়ার এ ‘পাসপোর্ট দফতরে’ গিয়ে আব্দুল ওহাবের সাথে কথা বলে জানা যায়, সেখানে টাকা জমা দিলে আবেদন কারীদের কোন ঝামেলা পোহাতে হবে না। পুলিশ তদন্তসহ জরুরি পাসপোর্টের ক্ষেত্রে ৯ হাজার ৫ শ’ টাকা দিলে মাত্র ১১ দিনে পাসপোর্ট পাওয়া যাবে, আর সাধারণ পাসপোর্ট ৬ হাজার ৫ শ’ টাকা দিতে হবে, পাওয়া যাবে ২১-২৫ দিনের ভিতরে।
যশোর পাসপোর্ট অফিসের উপ পরিচালক আবু নোমান মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, এ কর্মকাণ্ড সম্পূর্ণ অবৈধ। যেখানে জরুরি পাসপোর্ট করতে খরচ হয় ৬ হাজার ৯শ’টাকা ও সাধারণ পাসপোর্টে ৩ হাজার ৪৫০ টাকা সাথে ব্যাংকের যে কমিশন, সেখানে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে পাসপোর্ট করে দেয়ার এমন দোকান বেআইনি।