প্রথম রোজায় যশোরের ইফতারির দোকানে ছিল বেশ ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক :
শুক্রবার ছিল পহেলা রমজান। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে মাসব্যাপী চলবে সিয়াম সাধনা। আত্মসংযম ও আত্মশুদ্ধির পরীক্ষায় অংশ নেবেন প্রতিটি ধর্মপ্রাণ মুসলমান। সেহরি ও ইফতার রোজার অবিচ্ছেদ্য অংশ। তাই রমজান শুরুর আগের দিন থেকেই যশোর শহরে গড়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ ইফতারির বাজার। আর স্থায়ী দোকানগুলোও সাজানো হয়েছে আকর্ষণীয় সাজে। রোজার প্রথম দিনে বেচাকেনা ভালো হয়েছে বলে জানান দোকানীরা।
গতকাল শহর ঘুরে দেখা গেছে, শহরের প্রাণ কেন্দ্র দড়াটানা, চেীরাস্তা, মুজিব সড়ক, আরএন রোড, মনিহার এলাকা, বেজপাড়া, রেলবাজার, বড়বাজার, পুলেরহাট বাজারসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানগুলোতে বিভিন্ন ধরণের আইটেম নিয়ে ইফতারির দোকান সাজানো হয়েছে। চেীরাস্তায় অবস্থিত মধূ সুইটসের ম্যানেজার মোহাম্মদ সোহাগ জানান, তাদের দোকানে ২৫ ধরনের আইটেমের ইফতারি বিক্রি করা হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে চিংড়ি মাছের চপ ২০ টাকা, মাটন চাপ ২০ টাকা, চিকেন চপ ৩০ টাকা, সবজি চপ ৫ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়া আলু, পেঁয়াজু, ফুলোরিতো আছেই।
নূর হোটেল এন্ড সুইটসের মালিক শেখ মুকুল জানান, তাদের দোকানে ২১ ধরনের ইফতারি পসরা সাজানো হয়েছে। এর মধ্যে মাছের চপ ৮০ টাকা পিস, চিকেন, গ্রিল ১০০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। ক্যাফে প্রেসক্লাবের স্বত্তাধিকারী রফিকুল ইসলাম জানান, আমাদের হোটেলে ব্যতিক্রম ইফতার আইটেম রয়েছে। এর মধ্যে রেশমি জিলাপি ১৬০ টাকা কেজি হিসেবে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ভেন্ডি, পটল, শাক ও মাশরুমেম চপ ৩ থেকে ৫ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রথম রোজার দিন শুক্রবার হওয়ায় অনেকে বাড়িতে ইফতারের আয়োজন করেছেন। তারপরও তাদের ভালো বিক্রি হয়েছে।
সেই সাথে ইফতারির জন্য ফলের দোকান থেকেও মৌসুমী ফল কেনেন ক্রেতারা। এর পাশাপাশি সরবত তৈরির জন্য ক্রেতারা রুহআফজা, সিনারোজ, ট্যাং, ইসপিসহ বিভিন্ন উপকরণ কেনেন।
শহরের বেজপাড়ার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম জানান, এবার ইফতারের আইটেম যা দেখছি তার সবকটি বেশি দাম রাখা হচ্ছে।