দামুড়হদায় ইজারাদরের বিরুদ্ধে সরকারি বিলের মাটি বিক্রির অভিযোগ

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি :
চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় ইজারাদারের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে সরকারি বিলের জমির মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অভিযোগে জানা গেছে, া উপজেলার দুধপাতিলা মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি দামুড়হুদার হাউলি ইউনিয়নের মাছ চাষের জন্য বাংলা ১৪২২ থেকে তিন বছরের জন্য দুধপাতিলা বিলের ইজারা নেয়। বিলের পানি শুকিয়ে যাওয়ায় সমবায় সমিতির সভাপতি ছোট দুধপাতিলা গ্রামের ঝড়– হালদার দীর্ঘদিন ধরে পার্শ্ববর্তী গ্রাম বড় দুধপাতিলা গ্রামের আজিবারের ছেলে শাজাহান ও আজিজুল জোয়ার্দ্দারের ছেলে বিপ্লবের সহায়তায় অবৈধভাবে বিলের জমির মাটি কেটে বিক্রি করে দিচ্ছে। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১০-১২টি ট্রাক্টরের ট্রলি বোঝায় করে এসব মাটি চলে যাচ্ছে আশপাশের বিভিন্ন ইটভাটায় ও গর্ত ভরাটের কাজে। দুধপাতিলা থেকে দর্শনায় যাতায়াতের একমাত্র সড়কটি দিয়ে এসব মাটিবোঝাই গাড়ি চলাচলের কারনে ইতোমধ্যেই রাস্তাটি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এভাবে আর কিছুদিন চললে রাস্তাটি পুরোপুরি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়বে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
মাটি বিক্রির ব্যাপারে সমিতির সভাপতি ঝড়– হালদারের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমরা মাছ চাষের জন্য বাংলা ১৪২২ থেকে ১৪২৪ সন পর্যন্ত তিন বছরের জন্য বিলটি ইজারা নিয়েছি। বর্তমানে পানির অভাবে ও ভরাট হয়ে যাওয়ায় বিলটি শুকিয়ে গেছে। ইতোমধ্যে এটি খননের জন্য আমরা চুয়াডাঙ্গা ডিসি অফিসে মৌখিকভাবে ও দামুড়হুদা উপজেলা মৎস্য বিভাগে লিখিতভাবে আবেদন জানিয়েছি। বর্তমানে বিলটি শুকনা থাকায় সেখান থেকে আশপাশের লোকজন ইটভাটায়, গর্ত ভরাট করতে ও পানের বরজে দেওয়ার জন্য দুই এক গাড়ি করে মাটি নিয়ে যাচ্ছে। তবে মাটির জন্য কোন টাকা পয়সা নেওয়া হচ্ছে না। আর রাস্তার ক্ষতি হলে আমরা কিছু লেবার দিয়ে ঠিক করে দেব।
দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদুর রহমান বলেন, বিলের মাটি কেটে বিক্রি করার বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে ইজারাদার বিলের মাটি খনন করতে পারে না। এরকম কিছু হলে আমরা দেখে ব্যাবস্থা নেব।