শ্রীলঙ্কার পার্লামেন্ট বিলুপ্ত

বিবিসি জানিয়েছে, শুক্রবার এক ঘোষণায় দেশটির সরকারের মুখপাত্র রাজিথা সেনারান্তে বলেছেন, “পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করে একটি গেজেট নোটিফিকেশনে সই করেছেন প্রেসিডেন্ট, যা আজ মধ্যরাত থেকে কার্যকর হবে।”

এর আগে ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) এক মুখপাত্র জানিয়েছিলেন, পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করার জন্য প্রেসিডেন্টের কাছে আনুষ্ঠানিক অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

এর অল্প সময় পরই প্রেসিডেন্টের দপ্তর থেকে পার্লামেন্টে বিলু্প্তির ঘোষণা জারি হয়।
গেল প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সিরিসেনাকে সমর্থনকারী প্রধান রাজনৈতিক দল ইউএনপি। দলটির নেতা রনিল বিক্রমাসিংহে দেশটির প্রধানমন্ত্রী।

শ্রীলঙ্কার আইন অনুযায়ী পার্লামেন্ট বিলুপ্তির ৫২ থেকে ৬৬ দিনের মধ্যে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সরকারি সূত্রগুলো জানিয়েছে, আগামী ১৭ অগাস্ট সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে।

পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করা না হলে পরবর্তী ১০ মাসেও শ্রীলঙ্কার সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা ছিল না।

দেশটির নির্বাচন কমিশনার মাহিন্দা দেশপ্রিয়া শনিবার একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছেন, সেখানে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করবেন তিনি।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর পরবর্তী একশ দিন মেয়াদের জন্য একটি জোট সরকার ক্ষমতা গ্রহণ করেছিল।
ইতোমধ্যেই ওই সময় পার হয়ে গেছে। এবার পার্লামেন্ট বিলুপ্ত করার মাধ্যমে জোট সরকারের মেয়াদও আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হল।

গেল নির্বাচনে সিরিসেনার কাছে পরাজিত সাবেক প্রেসিডেন্ট মহিন্দা রাজাপাকসে আসছে সাধারণ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার মঞ্চে আবার ফিরে আসতে পারবেন বলে প্রত্যাশা করছেন। এর আগে জানিয়েছিলেন, তিনি শ্রীলঙ্কার পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে চান।