জয় হলো ফারিয়ার,পেয়েছে জিপিএ-৫ অভিযুক্ত শিক্ষককে বদলি

ফরহাদ খান :
অবশেষে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রী ফারিয়া ইসলাম।
এদিকে নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিষয়ের অভিযুক্ত শিক্ষক ফসিয়ার রহমানকে বাগেরহাটে বদলি করা হয়েছে।
ফারিয়ার মা সাবিনা আক্তার শিল্পী বলেন, অবেশেষে আমার মেয়ে ফারিয়া জিপিএ-৫ পেয়েছে। তবে গোল্ডেন এ প্লাস পেলে খুশি হতাম। স্কুলশিক্ষকা সাবিনা জানান, রোববার বিকেলে তার মেয়ের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে ফারিয়া বলে, আমি খুশি হয়েছি। তবে গোল্ডেন এ প্লাস পেলে আরো ভালো লাগত। নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মনিরা সুলতানা জানান, অভিযুক্ত শিক্ষক ফসিয়ার রহমানকে ‘জনস্বার্থে বদলি’ করা হয়েছে। বদলির আদেশে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ‘জনস্বার্থে বদলি’র কথা উল্লেখ করেছেন। এদিকে নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষক ফিরোজ কিবরিয়া বলেন, পরিকল্পিত ভাবে ফরিয়ার ফলাফল খারাপ করা হয়েছিল। তার ফলাফলে খুশি হয়েছি।
ফারিয়ার বাবা জহিরুল ইসলাম জানান, ফারিয়া পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিসহ প্রথম থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত কখনো প্রথম, কখনো দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে এসেছে।
প্রসঙ্গত, শিক্ষকের প্রেম প্রস্তাব প্রত্যাখানসহ উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক ফসিয়ার রহমান এসএসসি পরীক্ষায় ফারিয়ার পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ে জমাকৃত খাতা ও বহুনির্বাচনির উত্তরপত্র পরিবর্তন করে বিকৃত করে জমা দেন। এ কারনে মেধাবী ফারিয়া সাতটি বিষয়ে এপ্লাস পেলেও পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। এছাড়াও পাঁচটি ব্যবহারিক পরীক্ষার ফল কম্পিউটার কম্পোজ করে ফসিয়ার রহমান বোর্ডে পাঠানোর দায়িত্বপ্রাপ্তির সুযোগে ফারিয়াকে ব্যবহারিকেও ১৫ নম্বর করে দেন। অথচ নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের সব পরীক্ষার্থীকে ২৫ নম্বর করে দেয়া হয়।
ভূক্তভোগী শিক্ষার্থী ফারিয়াসহ তার বাবা-মা জানান, প্রায় তিন বছর আগে শিক্ষক ফসিয়ার রহমান নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে কর্মরত থাকাকালীন প্রায়ই ফারিয়াকে উত্ত্যক্ত করতো। বিষয়টি জানাজানি হলে ফসিয়ারকে নড়াইল থেকে মেহেরপুরে বিদ্যালয়ে বদলি করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। পরে নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে যোগদান করেন ফসিয়ার রহমান। নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ফারিয়া ইসলামের এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র হওয়ায় এবং ফসিয়ার রহমান পরীক্ষা কমিটির সদস্য থাকায় অপকৌশলে ফারিয়াকে পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ের উত্তরপত্র বিকৃত ভাবে জমা দেন।