ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজিকালে আটক ৩

নিজস্ব প্রতিনিধি:যশোর সদর উপজেলার রূপদিয়া বাজারে রোববার সন্ধ্যায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চাঁদাবাজির সময় একটি প্রাইভেটকারসহ ৩ জনকে আটক করা হয়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রূপদিয়া বাজারের এনপি রোডের তেল ও মবিল ব্যবসায়ী তরিকুল ইসলামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অপরিচিত চারজন হাজির হয়ে নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। তারা অভিযোগ করে ভেজাল তেল মবিলসহ মাদকের ব্যবসা করে তরিকুল। এছাড়াও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ হুমকি ধামকি দিতে থাকে তারা। এক পর্যায়ে পাশের ব্যবসায়ী অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ফজলুর রহমান ও মুদি ব্যবসায়ী মিলন এসে তাদের পরিচয় জানতে চায়। বরাবরের মতো ব্যবসায়ী ফজলুর রহমানের কাছে নিজেদেরকে ডিবি পুলিশের পরিচয় দেয়। ফজলুর রহমান তাদের কাছে পরিচয় পত্র দেখতে চাইলে তাদের উপর চড়াও হয়। চাপাচাপির এক পর্যায়ে অবস্তা বেগতিক দেখে ডিবি পুলিশ পরিচয়ধারী ৪ ব্যক্তি তাদের ব্যবহৃত একটি সাদা রঙের প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো খ-১১-৩০৯৬) নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় স্থানীয়রা ধাওয়া দিয়ে প্রাইভেটকারটি আটক করে। এ সময় গাড়িতে থাকা ঝিকরগাছার কৃষ্ণনগর গ্রামের নূরুজ্জামানের ছেলে আসাদুজ্জামান(৩০), একই এলাকার হারিয়াদাড়া গ্রামের আরাফাত মল্লিকের ছেলে ইমরান হোসেন(২৮) ও প্রাইভেটকারের চালক রয়েলকে (২৭) লোকজন আটক করে এবং অপর একজন পালিয়ে যায়। এসময় তাদের কাছ থেকে তিনটি মোবাইল ফোন ও একটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। ততে লেখা আছে- সৈনিক মো. ইমরান হোসেন, আইডি নম্বর- আর্টি-৩১৮৩০৯, সেনা নম্বর-১২২৭৯৯৬, ইস্যু তারিখ-২৯ মে ২০১২, প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ ১৯ পদাতিক ডিভিশন সেনা সদর এজি শাখা পি.এ পরিদপ্তর, ঢাকা সেনানিবাস।
এ ব্যাপারে স্থানীয় নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ আব্দুর রহিম জানান, বিদেশ পাঠানো নিয়ে লেনদেনের জের ধরে তাদের আটক করে জনতা। পরে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।