যশোর জিলা স্কুলের জমি সুরক্ষায় মাঠে নেমেছে প্রাক্তন ছাত্র সমিতি

নিজস্ব প্রতিবেদক:যশোর জিলা স্কুলের জমিতে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অফিস নির্মাণ উদ্যোগের প্রতিবাদে মাঠে নেমেছে প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতি। শনিবার দুপুরে সংগঠনের এক সভা থেকে এর প্রতিবাদে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।
সংগঠনের নেতৃবৃন্দ জানান, এর আগে যশোর জিলা স্কুলের জমিতে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস নির্মাণ করা হয়েছিলো। এখন আবার শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অফিস নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এভাবে একের পর এক স্কুলের জায়গায় সরকারি দপ্তর নির্মাণের কারণে কমছে জমির পরিমাণ। এতে শিক্ষার পরিবেশ বিঘিœত হওয়ার পাশাপাশি ভবিষতে একাডেমিক ভবন নির্মাণে স্থান সংকটে পড়বে রতœগর্ভা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যশোর জিলা স্কুল।
নেতৃবৃন্দ আরও জানান, এখানে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অফিস হলে দরপত্র আহ্বান, দাখিল নিয়ে প্রায়ই নানা ঝামেলা ঝঞ্ঝাট সৃষ্টি হবে। এতে স্কুলের শিক্ষার পরিবেশ বিঘিœত হবে। আবার প্রস্তাবিত স্থানের সামনের সার্কিট হাউজ ভবন। ফলে সার্কিট হাউজেরও নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়বে।
পশাপাশি প্রতি বছরই বাড়ছে জিলা স্কুলের শিক্ষার্থী সংখ্যা। সরকারের কলেজিয়েট স্কুল শিক্ষা নীতিতে মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুলগুলো উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে। যদি যশোর জেলায় সরকারি স্কুলে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণি খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তাহলে যশোর জিলা স্কুল অগ্রাধিকার পাবে। তখন শিক্ষার্থী সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পাবে। ফলে একাডেমিক ভবন র্নিমাণে স্থান সংকট দেখা দিবে। এসব কারণ বিবেচনায় রেখে জিলা স্কুলের জমি সুরক্ষারও দাবি নেতৃবৃন্দ।
শনিবার দুপুরে যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির এ সভা সংগঠনের অফিসকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমিতির সভাপতি প্রফেসর তসদিকুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সহ সভাপতি ইয়াসিন আলী, সৈয়দ আব্দুল মাজেদ ও আব্দুল মালেক, সাধারণ সম্পাদক এ জেডএম সালেক, কোষাধ্যক্ষ সাখাওয়াত হোসেন সাকু, তৌহিদুর রহমান, মাহমুদ রিবন, ওয়াহিদুর রহমান ডেলটা, শ্রাবস্তী আহমেদ, প্রণব দাস, হাবিবুর রহমান মিলন, সওগাত কামাল দীপ, মনজুর হাসান, আসিফ উদ্দিন প্রমুখ।
সভায় রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদানের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। এছাড়া সমিতির নির্বাহী সদস্য প্রয়াত মিজানুর রহমান বাদল স্মরণে শোকপ্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।