রানা প্লাজা : হত্যা মামলায় অভিযোগপত্র গ্রহণ ২৩ জনকে গ্রেফতারে পরোয়ান

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:সাভারের রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় করা হত্যামামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ করে পলাতক ২৩ আসামিকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।
সোমবার ঢাকার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মোহাম্মদ আল-আমিন এ আদেশ দেন।
বিচারক মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য ২৭ জানুয়ারি দিন ঠিক করেছেন বলে সংশ্লিষ্ট আদালত পুলিশের প্রসিকিউশন বিভাগের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান জানিয়েছেন।
বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, ওই দিন পরোয়ানাভুক্ত পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে সংশ্লিষ্ট থানাগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারে পরোয়ানা জারির পাশাপাশি তাদের মালামাল জব্দ করতেও বিচারক আদেশ দেন বলে তিনি জানান।
এদের মধ্যে ৫ সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ছাড়া অভিযোগপত্র গ্রহণ করায় মামলাটির বিচার উচ্চ আদালতে গিয়ে ঝুলে যেতে পারে বলে মনে করেন ফৌজদারি মামলায় অভিজ্ঞ আইনজীবী আমিনুল গণী টিটো।
পরোয়ানাভুক্ত পলাতক আসামিরা হলেন- সাভার পৌরসভার সাবেক সহকারী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান, পৌর নগর পরিকল্পনাবিদ ফারজানা ইসলাম, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের সাবেক উপ-প্রধান পরিদর্শক মো. আব্দুস সামাদ, উপ-প্রধান পরিদর্শক (সাধারণ, ঢাকা বিভাগ ) মো. জামশেদুর রহমান, উপ-প্রধান পরিদর্শক বেলায়েত হোসেন, চট্টগ্রাম বিভাগের পরিদর্শক (প্রকৌশল) মো. ইউসুফ আলী, ঢাকা বিভাগের পরিদর্শক (প্রকৌশল) মো. সহিদুল ইসলাম, রাজউকের ইমারত পরিদর্শক মো. আওলাদ হোসেন, ইতার টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জান্নাতুল ফেরদৌস, মো. শফিকুল ইসলাম ভূইয়া, মনোয়ার হোসেন বিপ্লব, মো. আতাউর রহমান, মো. আব্দুস সালাম, বিদ্যুৎ মিয়া, সৈয়দ শফিকুল ইসলাম জনি, রেজাউল ইসলাম, নান্টু কন্ট্রাকটার, মো. আব্দুল হামিদ, আব্দুল মজিদ, মো. আমিনুল ইসলাম, নয়ন মিয়া, মো. ইউসুফ আলী ও তসলিম।
এদের মধ্যে আব্দুস সামাদ, জামশেদুর রহমান, বেলায়েত হোসেন, ইউসুফ আলী ও সহিদুল ইসলাম সরকারি কর্মকর্তা।
পুলিশ পরিদর্শক আসাদুজ্জামান বলেন, “চার্জশিট দাখিল হওয়ার পর পাঁচজনের বিষয়ে মঞ্জুরি আদেশ চাওয়া হলেও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ‘তারা জড়িত নয়’ মর্মে আদালতে প্রতিবেদন দেয়।
“কিন্তু আদালতের কাছে মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন বিশ্বাসযোগ্য না হওয়ায় মঞ্জুরি আদেশ ছাড়াই চার্জশিট গ্রহণ করেছেন।”
পলাতক ২৩ জনের বাইরে অভিযোগপত্রভুক্ত ১৮ আসামির মধ্যে শুধু ভবন মালিক সোহেল রানা ছাড়া বাকিরা জামিনে আছেন।
এরা হলেন- রানার বাবা আব্দুল খালেক ওরফে কুলু খালেক, মা মর্জিনা বেগম, রেফাত উল্লাহ, মোহাম্মাদ আলী খান, রফিকুল ইসলাম, রাকিবুল হাসান রাসেল, বজলুস সামাদ আদনান, মাহমুদুর রহমান তাপস, আনিসুর রহমান ওরফে আনিসুজ্জামান, আমিনুল ইসলাম, মো, সারোয়ার কামাল, উত্তম কুমার রায়, অনিল দাস, শাহ আলম, আবুল হাসান, মোহাম্মদ আলী খান ও রাকিবুল হাসান।
২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন আট তলা রানা প্লাজা ধসে এক হাজার ১৩৫ জনের মৃত্যু হয়। আহত হন আরও হাজারখানেক শ্রমিক, যারা ওই ভবনের পাঁচটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন।
এঘটনায় হত্যা ও ইমারত নির্মাণ আইনের দুই মামলায় চলতি বছরের ১ জুন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের ( সিআইডি) সহকারী সুপার বিজয়কৃষ্ণ কর ঢাকার মুখ্য বিচারিক হাকিম ৪২ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।
এরপর ৮ জুলাই ইমারত নির্মাণ আইনের মামলায় অভিযোগপত্র গ্রহণ করে পলাতক ছয় আসামির বিরুদ্ধে আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করলেও হত্যামামলায় অভিযোগপত্রভুক্ত ৫ সরকারি কর্মকর্তার ক্ষেত্রে মঞ্জুরি আদেশ না থাকায় একাধিকবার শুনানি পেছানো হয়।
দুই মামলার মধ্যে ইমারত নির্মাণ আইনের মামলায় ১৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। তবে রানা, তার মা ও বাবাসহ ১৭ জন দুই মামলাতেই আসামি হওয়ায় মোট আসামির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪২ জন।
হত্যা মামলার অভিযোগপত্রে রাষ্ট্রপক্ষে ৫৯৪ জন এবং ইমারত আইনের মামলায় ১৩০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।