চৌগাছায় নৌকা প্রতীকের পক্ষে আ.লীগ নেতাকর্মীরা একাট্টা

বিল্লাল হোসেন:যশোরের চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেলের নৌকা প্রতীকের জয়ের ধ্বনি বইছে। আর বিজয়ের সুর শেষপর্যন্ত বাজাতে ও মেয়র নির্বাচিত হতে সকাল থেকে গভীর রাতঅবধি ভোটারদের কাছে ছুটছেন নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেল। তার পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা একাট্টা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে করছেন নির্বাচনী সভা। তবে তিনি অভিযোগ করেছেন, ভোটে তাকে পরাজিত করতে অপতৎপরতায় মেতে উঠেছেন বিদ্রোহী প্রার্থী এসএম সাইফুর রহমান বাবুল ও তার কর্মীবাহিনী। অপরদিকে, হিমেলকে নির্বাচনী কাজে সর্বদা সহায়তা করে চলেছেন আওয়ামী লীগের প্রকৃত ত্যাগী নেতাকর্মীরা। এর মধ্যে কয়েকজন নেতাকর্মী দৈনিক স্পন্দনকে জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে নির্বাচনে তারা নৌকা প্রতীকের সম্মান রক্ষার্থে কঠোর পরিশ্রম করছেন।
এ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে ইতোমধ্যে মেয়র প্রার্থী নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেলের নৌকা প্রতীকে জয়ের ধ্বনি শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের কর্মী রমজান আলী, মনিরুল ইসলাম, জসিম উদ্দিন ও শফিয়ার রহমান জানান, আওয়ামী লীগের সমর্থনে হিসেবে তারা নৌকাকে ভালোবাসেন। এ নির্বাচনে সেই নৌকা প্রতীকের মাঝি হয়েছেন নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেল। প্রার্থী যেই হোক না কেন, তারা নৌকা প্রতীকে ভোট দেবেন। আওয়ামী লীগের আরেক সমর্থক হুমায়ুন কবির, আশরাফ হোসেন ও সাইদুল ইসলাম বলেন, কোনো প্রকার স্বার্থ ছাড়াই দলকে ভালোবাসেন তারা। দলকে বিজয়ী করতেই তারা নৌকা প্রতীকে ভোট দেবেন। তাদের দাবি হিমেলকে বিজয়ী করতে আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীকে যোটবদ্ধ হয়ে কাজ করা উচিত। মারুফ হাসান বাচ্চু, কালু মিয়া, আশানুর রহমান বলেছেন, চৌগাছা পৌরসভা নির্বাচনে জয়ের ধ্বনি শুরু হয়েছে। দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষ এবার নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে নতুন মুখের মেয়র নির্ধারিত করবেন। কেননা বিগত দিনে সেলিম রেজা আউলিয়ার দুবার মেয়র নির্বাচিত হলেও পৌরসভার তেমন কোনো উন্নয়ন হয়নি। ফলে তার থেকে মানুষ এবার মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। এদিকে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেলের তেমন কোনো দুর্নাম নেই। তিনি আওয়ামী লীগের একজন প্রার্থী। মেয়র পদে বিজয়ী হতে হিমেল সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাইছেন। মানুষের কাছে তার জনপ্রিয়তা অনেক বেড়েছে। নূরউদ্দিন আল মামুন হিমেল দৈনিক স্পন্দনকে জানিয়েছেন, তিনি সংঘাত ও সন্ত্রাসের রাজনীতি পছন্দ করেন না। অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন তার কাম্য। কিন্তু নির্বাচনের আগেই বিদ্রোহী প্রার্থী নারিকেল গাছ প্রতীকের এসএম সাইফুর রহমান বাবুল ও তার কর্মীবাহিনীরা চৌগাছায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে। তাদের ভয়ে সাধারণ কর্মীরা প্রচার প্রচারণা চালাতে পারছেন না। তবুও আওয়ামী লীগের অনেক ত্যাগী নেতাকর্মী তাকে (হিমেল) সর্বদা সহায়তা করে যাচ্ছেন। চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান কবীর, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয়সহ অনেকে জানিয়েছেন, নৌকা প্রতীকের সম্মান রক্ষা করার জন্যে তারা কঠোর পরিশ্রম করছেন।
চৌগাছায় নৌকা প্রতীকের পক্ষে