যশোরে গোলাগুলিতে বেনাপোলের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী রিপন নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর-মাগুরা সড়কের পাঁচবাড়িয়ায় গোলাগুলিতে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী রিপন হোসেন (৩০) নিহত হয়েছে। রিপন বেনাপোল পোর্ট থানার ছোটআঁচড়া গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে। গত বুধবার দিবাগত রাতে এঘটনা ঘটে।
তার বিরুদ্ধে যশোরের বিভিন্ন থানায় হত্যা, ডাকাতি, চাঁদাবাজি, ছিনতাইসহ ২১টি মামলা আছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
কোতয়ালি থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন জানিয়েছেন, বুধবার দিবাগত রাত একটার দিকে যশোর-মাগুরা সড়কের পাঁচবাড়িয়া মাধ্যমিক স্কুলের সামনে দুইদল ডাকাতের মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। সংবাদ পেয়ে সেখানে পুলিশ পৌছালে ডাকাতদল পালিয়ে যায়। তবে স্কুলের সামনে পাকা রাস্তার ওপর একটি মৃতদেহ পড়ে থাকে। মরদেহের মাথার ডানপাশে একটি গুলি লাগে। মরদেহটি পুলিশ উদ্ধার করে রাতে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ানস্যুটারগান এক রাউন্ড গুলি এবং এক রাউন্ড বন্দুকের গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ পেয়ে নিহতের পরিবারের লোকজন যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে আসে এবং নিহতের মামা শহিদুল ইসলাম তার লাশ শনাক্ত করেন।
নিহতের মামা শহিদুল ইসলাম স্ত্রী শিরিন বকুল ও চাচাতো ভাই কোরবান আলী দাবি করেছেন, ১৫ দিন আগে বেনাপোলে আনসার সদস্যকে হাতুড়ি পেটা করার অভিযোগে দায়ের করা মামলার আসামি ছিল রিপন। বুধবার সে যশোর আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে বের হওয়ার সাথে সাথে সাদা পোশাকের একদল পুলিশ তাকে উঠিয়ে নিয়ে যায়। এরপর তার কোন সন্ধান মেলাতে পারেনি কেউ। বৃহস্পতিবার দুপুরে তার মরদেহ হাসপাতালে পাওয়া যায়।
বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি অপূর্ব হাসান জানিয়েছেন, নিহত রিপনের বিরুদ্ধে পোর্ট থানায় ১৭টি মামলা আছে। এছাড়া ঝিকরগাছা ও শার্শা থানায় আরো ৫টি মামলা আছে বলে জানা গেছে।