যশোরে সন্ত্রাসী চিকি সমুনকে হেরোইনসহ আটকের দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক>
যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের গেট থেকে ‘নিখোঁজ’ হওয়ার তিনদিন পর সন্ত্রাসী সুমন ওরফে চিকি সুমনকে আটকের দাবি করেছে পুলিশ। তার কাছ থেকে ২০০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধারেরও দাবি করা হয়েছে। সে শহরের লালদিঘির পাড়ের নাসির মিয়ার ছেলে।
পুলিশের দাবি, কোতয়ালি থানা পুলিশের এএসআই মাজেদুল ইসলাম গোপন সূত্রে জানতে পারে শহরের রামকৃষ্ণ আশ্রম গেটের সামনে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী হেরোইন বিক্রির জন্য অবস্থান করছে। এ খবর পেয়ে ওই পুলিশ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশ রামকৃষ্ণ আশ্রম গেটের সামনে থেকে আটক করে সুমন ওরফে চিকি সুমনকে। তার কাছ থেকে ২০০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়।
পুলিশ আরো জানিয়েছে, ঘটনাস্থলে আরো দুজন মাদক ব্যবসায়ী ছিলো। এরা হচ্ছে, সদর উপজেলার চাঁচড়া ইউনিয়নের মৃত লিয়াকত আলী গাজীর ছেলে মফু ও ভাতুড়িয়া পশ্চিমপাড়ার জবেদ আলী মোড়লের ছেলে রওশন। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ৬ ডিসেম্বর বেলা এগারটার দিকে চিকি সুমন মাদকের একটি মামলায় জামিন পেয়ে কারাগার থেকে মুক্তি পায়। কিন্তু কারাগার থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে পুুলিশ পরিচয়ে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই থেকে চিকি সুমন নিখোঁজ ছিলো।
তবে অন্য একটি সূত্র জানিয়েছে, ভাতুড়িয়া এলাকার রওশন বেশ কয়েকদিন আগে পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল। কিন্তু তাকে গোপন স্থানে রেখে দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে তার এক মেয়েকে আটকের হুমকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে পুলিশ। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে কোতয়ালি থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন। তিনি বলেছেন, রওশন নামে কেউ আটক নেই পুলিশের হাতে।