তালায় জেলা পরিষদ নির্বাচন জমজমাট

তপন চক্রবর্তী, তালা>
জেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী হাওয়া। প্রতীক না বের হলেও ঘুম নেই প্রার্থীদের। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ভোটারদের কাছে যেয়ে ধর্ণা দিচ্ছেন প্রার্থীরা। তৃনমূল ভোটারদের ভোট না হলেও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের (ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার) ভোটে নির্বাচিত হবেন সদস্য। আর প্রার্থীরা প্রচারণার ছবি প্রকাশ করছে ফেসবুকসহ সোস্যাল মিডিয়ায়। এ ভোট নিয়ে মানুষের আগ্রহের কমতি নেই।
তালা উপজেলার খলিলনগর, তালা সদর, তেঁতুলিয়া, ইসলামকাটি, মাগুরা ও জালালপুর ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের ১৫ নম্বর ওয়ার্ড। এ ওয়াডের্র ছয়টি ইউনিয়নের ৭৮ জন ও উপজেলা চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলে ৮০ জন ভোটার রয়েছে। এখানে সদস্য পদে নির্বাচন করছেন আওয়ামী লীগের ছয় জন প্রার্থী। তবে সদস্য পদে যারা নির্বাচন করছেন তাদের মধ্যে দু’জন জনপ্রতিনিধি ছিলেন। বাকী চারজন প্রার্থী হয়েছেন নতুন।
প্রার্থীরা হলেন-তালা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দীন বিশ্বাস, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জাকির হোসেন, তরুন নেতা দেবব্রত রায় দেব, সাবেক ছাত্রনেতা বাবলুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও জালাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোড়ল আব্দুর রশিদ ও সাবেক ইউপি সদস্য মো. আলম। এসব প্রার্থীরা নিজেরা সকলে জয়ী হবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।
তৃণমূল ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দিন-রাত সব সমান হয়ে যাচ্ছে প্রার্থীদের। ভোটের আশায় চেয়ারম্যান-মেম্বরদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে দিচ্ছেন ধর্ণা। কে কোন প্রার্থীর পক্ষে তাও প্রকাশ্যে বলছে না কেউ। যে ভোট চাইতে যাচ্ছেন, তাকেই ভোট দেয়ার আশ্বাস দিচ্ছেন ভোটাররা। বাস্তবতায় কে-কাকে ভোট দিবেন তা প্রকাশ করছে না কোন ভোটার। তবে ভোটের মাঠে শাহাবুদ্দীন বিশ্বাস ও মীর জাকির হোসেন’র মধ্যেই লড়াই হবে বলে ভোটারদের ধারণা।
ভোটার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম জানান, এই ওয়ার্ডে মূলত শাহাবুদ্দীন বিশ্বাস ও মীর জাকিরের মধ্যে ভোটের লড়াই হবে। ভোটের মাাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তারা। ইউনিয়নের সদস্যদের (মেম্বর) সাথে সমন্বয় করে ভোট দেয়া হবে। তবে যে যোগ্য তাকেই ভোট দিবেন বলে জানান তিনি। তালা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সরদার জাকির হোসেন জানান, ত্যাগী পরিক্ষিত ও প্রবীন আওয়ামী লীগ হিসেবে শাহাবুদ্দীন বিশ্বাসের বিকল্প নেই। সদস্য প্রার্থী দেবব্রত রায় দেব বলেন, মানুষের ভালবাসায় ভোট হয়। হুমকি-ধামকি আর টাকা দিয়ে মানুষের মন জয় করা যায় না।
সদস্য প্রার্থী তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জাকির হোসেন জানান, আমি ভোটের মাঠে আছি। ভোটারদের সাথে নিয়ে ভোট করে যাচ্ছি। তবে আমার কর্মী সমর্থক বা ভোটাদের হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
সদস্য প্রার্থী শাহাবুদ্দীন বিশ্বাস জানান, ভোটের মাঠে থেকে ভোট করে যাচ্ছি। আমার কর্মী সমর্থকদের নানা ভাবে হুমকি দেয়া হচ্ছে। তাদের বলা হচ্ছে, ভোটের পরদিন ২৯ ডিসেম্বার দেখা হবে তাদের (ভোটার) সাথে।
তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নূরুল ইসলাম জানান, দলীয় কোন প্রার্থী দেয়া হয়নি। আওয়ামী লীগের ছয় জন প্রার্থী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে কারও পক্ষে কোন সীদ্ধান্ত দল গ্রহন করেনি।