যশোরে মহান বিজয় দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক:মহান বিজয় দিবসে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় যশোরে স্মরণ করা হয়েছে শহিদদের। দিবসের প্রথম প্রহরে ১২টা ১ মিনিটে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিশু-কিশোর সংগঠন দিবসটি পালনে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করে। দিনব্যাপী এসব কর্মসূিচতে রাজনৈতিক , সামাজিক ও জেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা অংশ গ্রহন করেন। এছাড়া শামস্ উল হুদা স্টেডিয়ামে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা কুচকাওয়াজ ও শরীরচর্চা প্রদর্শন করে। বিজয় দিবসের সকাল ৭টার পর বীর শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শহরের মনিহার প্রাঙ্গনে বিজয়স্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের জন্য মানুষের ঢল নামে। প্রগতিশীল সাহিত্য-সংস্কৃতিককর্মী, রাজনীতিবিদ, সমাজকর্মীসহ যশোরের বিভিন্ন স্তরের জনগণ পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন বীর সন্তানদের প্রতি।
শহিদদের প্রতি একে একে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. আব্দুস সাত্তার, যশোর জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর, পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানসহ প্রশাসনের পদস্ত কর্মকর্তারা।
এছাড়া শ্রদ্ধা জানাতে আসেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। এসময় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম মেম্বর পীযুষ কান্তি ভট্রাচার্য্যসহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার, যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভপতি আব্দুল খালেক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলী রায়হান, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবীর কবু, আওয়ামী লীগ নেতা ইমাম হাসান লাল, জেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরীসহ দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও জেলা বিএনপি, জাতীয় পার্টি, জাসদ, ওয়ার্কার্স পর্টি, সিপিবি, বাসদ, যুবলীগ, জেলা ছাত্রলীগ, যুবমহিলা লীগ, জেলা যুবদল, জেলা ছাত্রদল, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল, জাগপা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর, প্রেসক্লাব যশোর, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন (জেইউজে), সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোর, জেলা সাংবাদিক ইউনিয়ন, দৈনিক স্পন্দন পরিবার, লোকসমাজ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, যশোর সাহিত্য পরিষদসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে।
সকাল ৮ টায় যশোর শামস-উল-হুদা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত কুচ কাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর ও পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান। বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী, গার্লস গাইড, রোভার স্কাউট, পুলিশ, ভিডিপিসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মোট ৪৪ টি দল কুচকাওয়াজ ও ৩ দলের ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত হয়।
বেলা ১১ টায় টাউন হল ময়দানের রওশন আলী মঞ্চে মুক্তিযোদ্ধা ও শহিদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেয়া হয় জেলা প্রশাসান আয়োজিত এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর। প্রধান অতিথি ছিলেন যশোর ২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড.মনিরুল ইসলাম মনির। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান। বক্তব্য রাখেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার রাজেক আহমেদ, যুদ্ধকালীন বৃহত্তর যশোরের মুজিব বাহিনীর প্রধান আলী হোসেন মনি, উপপ্রধান রবিউল আলম ও মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী স্বপন। বিকেল ৪ টা ৩১ মিনিটে দেশ ব্যাপী কোটি কন্ঠে জাতীয় সংগীতে টাউন হল ময়দানের স্বাধীনতা মঞ্চ থেকে অংশ নেয় যশোরের শত শত সাংস্কৃতিক নেতাকর্মি। এর পরপরই রওশন আলী মঞ্চে বিজয় দিবস উপলক্ষে শুরু হয় অনুষ্ঠান মালা। শুরুতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে অংশ নেয় জেলা বিভিন্ন সংগঠনের শিল্পীরা। শেষে আলোচনাসভা। ”সুখী, সমৃদ্ধ, ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গঠনের লক্ষে ডিজিটাল প্রযুক্তির সার্বজনীন ব্যবহার” শীর্ষক এই আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর। বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ আবু সরোয়ার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার রাজেক আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম, অশোক রায় ও সাংবাদিক ফখরে আলম।
সরকারি এমএম কলেজ ও শিক্ষাবোর্ডে আলোচনাসভা, পুরষ্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এমএম কলেজে প্রধান অতিথি ছিলেন অধ্যক্ষ প্রফেসর মিজানুর রহমান। প্রফেসর সৃজন লাল দত্তের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ শফিউল ইসলাম সরদার, আইএম শরীফ হোসেন, প্রফেসর নুরুন্নাহার প্রমুখ।
ডশক্ষাবোর্ডে আলোচনাসভায় ড. আহসান হাবীবের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল আলিম, সচিব ড.মোল্লা আমীর হোসেন, কলেজ পরিদর্শক অমল কুমার বিশ্বাস, মূল্যায়ন অফিসার মিজানুর রহমান, হিসাব অফিসার এমদাদুল হক,সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) রেজাউল ইসলাম, আব্দুল খালেক, আবদুল মান্নান, আবদুল্লাহ হেল মুকিত, আবুল কালাম আজাদ, হুমায়ন কবীর উজ্জল প্রমুখ।