যশোরে ভারতীয় ভিসা সেন্টারের যাত্রা শুরু হচ্ছে আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক>
আজ মঙ্গলবার থেকে যশোরে ভারতীয় ভিসা সেন্টারের যাত্রা শুরু হচ্ছে। টুরিস্ট, মেডিকেল, ব্যবসাসহ সব ক্যাটাগরির ভিসা আবেদন জমা নেয়া হবে এ সেন্টারে। খুলনা বিভাগের সাত জেলার নাগরিকরা এখানে ভিসা আবেদন জমা দিতে পারবেন।
জানা গেছে, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার পরিচালনায় খুলনা, যশোর, ঝিনাইদহ, মাগুরা, নড়াইল, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরার নাগরিকদের ভারতীয় ভিসা প্রাপ্তির সুবিধার জন্য খুলনা সেন্টারে ২০১১ সালের জুন মাস থেকে সেবা পাচ্ছেন। উল্লিখিত সাত জেলার প্রায় দেড় কোটি মানুষের একটি মাত্র সেন্টারে আবেদন জমা ও ভিসা গ্রহণে নানা ভোগান্তির শিকার হয়ে থাকেন। দূর-দুরান্তের মানুষের যাতায়াত অসুবিধাসহ খুলনা সেন্টারের সামনে ওৎ পেতে থাকা বহিরাগত দালালদের হয়রানির ঘটনাও নিত্যদিনের। বিপুল সংখ্যক মানুষের ভিসা আবেদন গ্রহণ ও ভিসা ডেলিভারি দিতে হিমশিম খেতে হয় সেখানকার কর্মরতদের।
যশোরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ও খুলনা সেন্টারের চাপ কমাতে বাংলাদেশের ভারতীয় হাইকমিশনের সিদ্ধান্তে আরো একটি সেন্টার স্থাপনের তোড়জোড় শুরু হয়। বাংলাদেশ-ভারতীয় চেম্বার অব কমার্স এবং যশোরের ব্যবসায়ীদের দাবিরমুখে যশোরে ভারতীয় ভিসা অ্যাপলিকেশন সেন্টার (আইভিএসি) স্থাপিত হয়েছে। যশোর-নড়াইল সড়কের মণিহার সিনেমা হলের অদূরে বেগম কমিউনিটি সেন্টারে ভিসা আবেদন জমা ও ভিসা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। খুলনা সেন্টারে মাত্র ৬টি কাউন্টার থেকে সার্ভিস দেয়া হয়ে থাকে। যশোর সেন্টার পরিসর বাড়িয়ে করা হয়েছে ৮টি। সু-শৃংখলভাবে আবেদনকারীদের প্রবেশ ও বসার জন্যে উন্নতমানের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সেন্টারটি সাজগোজের কাজ শেষ। চলছে আবেদন জমা নেবার প্রস্তুতি। কর্তৃপক্ষ প্রধান ফটকে নোটিশ টাঙ্গিয়ে দিয়েছে যশোরবাসীর সুবিধার্থে ২০ ডিসেম্বর থেকে ভারতীয় ভিসা আবেদন গ্রহণ করা হবে। ওই নোটিশে বলা হয়েছে, বর্তমান প্রচলিত নিয়মের অ্যাপয়েনমেন্ট ডেট (ই-টোকেন) নেয়া প্রার্থীরা টুরিস্ট ভিসার আবেদন জমা দিতে পারবেন। মেডিকেল, ব্যবসাসহ অন্যান্য ক্যাটাগরির ভিসা আবেদন কোন প্রকার অ্যাপয়েনমেন্ট ডেট (ই-টোকেন) ছাড়াই আবেদন জমা নেয়া হবে।
স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার খুলনা শাখার ব্যবস্থাপক মানিক চক্রবর্তী জানিয়েছেন, খুলনা বিভাগের কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলার বাসিন্দারা রাজশাহী সেন্টারে আবেদন জমা ও ভিসা গ্রহণ করতে পারেন। বাকি ৭টি জেলার জন্যে খুলনার একটি মাত্র সেন্টারে কার্যক্রম চলছে। জনগণের সুবিধার্থে কর্তৃপক্ষ যশোরে সেন্টার স্থাপন করেছে। এটি খুলনা বিভাগের দ্বিতীয় সেন্টার হিসেবে বিবেচিত।
তিনি আরও জানান, যশোর সেন্টারটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন এখনি হচ্ছে না। জোরেশোরে কাজ চলছে সেন্টারটি চালু করার। আবেদনকারীদের সুবিধার্থে আজ ২০ ডিসেম্বর থেকে আবেদন জমা নেয়া হবে। কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তীতে অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সেন্টারটি উদ্বোধন করা হবে। বয়স্ক আবেদনকারী অর্থাৎ ৬৫ বছর বা তার উর্ধ্বে বয়সের প্রার্থীদের ই-টোকেন ছাড়া টুরিস্ট ভিসার আবেদন গ্রহণ করা হবে। অন্যান্য ভিসা আবেদন প্রচলিত নিয়মানুযায়ী গ্রহণ করা হবে। এক্ষেত্রে মেডিকেল ভিসার আবেদন সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত নেয়া হবে। অন্যান্য ক্যাটাগরির ভিসা আবেদন সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত জমা দিতে পারবেন প্রার্থীরা। ভিসা প্রসেসিং ফি মোবাইল ব্যাংকিং ইউ ক্যাশের মাধ্যমে দিতে হবে।
যশোর সেন্টারের নিচতলায় ফি জমা নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আবেদনকারীর ইউ ক্যাশ একাউন্ট থাকলে তার মাধ্যমে ভিসা প্রসেসিং ফি জমা করতে পারবেন। পাসপোর্টসহ ভিসা ডেলিভারি দেয়া হবে (ছুটির দিন বাদে) প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত। তবে যারা ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত খুলনা সেন্টারে আবেদন জমা দেবেন তাদের পাসপোর্টসহ ভিসা গ্রহণ করতে হবে সেখান থেকেই। আবেদনকারীদের অধিক সুবিধা দিতে যশোর সেন্টার থেকে পাসপোর্টে ডলার এনডোর্স ও স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার ট্রাভেল কার্ড বিতরণের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের।