দুর্নীতির প্রতিবাদে খুলনা-কুষ্টিয়া রুটে রূপসা পরিবহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক>
খুলনা-কুষ্টিয়া রুটের রূপসা পরিবহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে খুলনা ফেরিঘাট মোটর বাস মালিক সমিতির একাংশের নেতৃবৃন্দ।
সমিতির সভাপতি আব্দুল গফ্ফার বিশ্বাস, কার্যকরি সভাপতি শিবলী বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক মোল্লা মজিবর রহমানের অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখার প্রতিবাদে এ ঘোষণা দেয়া হয়।
বুধবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষনা দেন নেতৃবৃন্দ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক হানিফ হোসেন বলেন, আব্দুল গফ্ফার বিশ্বাস, শিবলী বিশ্বাস ও মোল্লা মজিবর রহমান ও তার লোকজন দীর্ঘ দুই যুগ ধরে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রেখেছেন। তারা পরষ্পর যোগসাজসে খুলনা থেকে দেড়শ’ টাকার স্লিপ দিয়ে গড়াই এবং রূপসা পরিবহনসহ দূরপাল্লার গাড়ি ছাড়েন। কিন্ত জোরপূর্বক প্রতি ট্রিপে নেয়া হয় ৪শ’ টাকা। এ টাকা আদায়ের জন্য তারা নিজস্ব লোক নিয়োগ দিয়ে রেখেছেন। ঝিনাইদহ থেকে অলিখিতভাবে গাড়ি প্রতি আপে ৪শ’ টাকা এবং ডাউনে ৩শ’ টাকা করে আদায় করা হয়। অনুরূপ কুষ্টিয়া থেকে আদায় করা হয় ৪শ’ টাকা থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকা করে। অথচ সমিতির ফান্ডে গাড়ি প্রতি ৪০ টাকা করে জমা হয়। প্রতিদিন গড়ে ৪০ হাজার টাকা করে আদায় করছেন গফ্ফার বিশ্বাস ও তার লোকজন। এভাবে তারা জোরপূর্বক টাকা আদায় করে লুটপাট করে খাচ্ছেন।
তিনি বলেন, সমিতিতে বাস অন্তর্ভুক্ত করার ফিস সাড়ে ৫শ’ টাকা। অথচ অলিখিতভাবে আদায় করা ২ থেকে ৩ লাখ টাকা করে। এছাড়া পঙ্কজ কুমার নামে এক মালিকের কাছ থেকে ১৪ লাখ টাকা নিলেও তাকে এখনো পর্যন্ত লিখিতভাবে সমিতির সদস্য পদ দেয়া হয়নি। দুর্নীতিবাজ নেতাদের এসব অবৈধ কর্মকা-ের প্রতিবাদ করলে গাড়ির স্টাফদের ওপর অত্যাচার চালানো হয়। সমিতি থেকে গাড়ি বের করে দেওয়ার হুমকিও দেয়া হয়।
তিনি আরও বলেন, খুলনা ফেরিঘাট মোটর বাস মালিক সমিতিতে রূপসা পরিবহন ও উত্তরবঙ্গে গাড়িসহ মোট ৮৬টি গাড়ি চলাচল করে। এর মধ্যে যশোর ও কালীগঞ্জের মালিকের গাড়ি রয়েছে ৬০টি। সভাপতি ও তার লোকজনের অত্যাচারের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং তাদের সীমাহীন দুর্নীতির প্রতিবাদে ২০ ডিসেম্বর থেকে রূপসা পরিবহনের বাস অনির্দিষ্টকালের চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সহ সাধারন সম্পাদক সেলিম রেজা, কার্যকরি সদস্য আব্দুল জব্বার, সদস্য মিজানুর রহমান, টনি মাহমুদ, মোসলেম উদ্দিন, গৌতম কুমার প্রমুখ।