৫২জনকে আসামি করে মামলা> যশোরে হত্যা মামলার আসামি আটককালে পুলিশের ওপর হামলা, আটক ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক >
যশোরে হত্যা মামলার আসামি আটককালে পুলিশের উপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করেছে।
পুলিশের উপর হামলা ও সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে ৫২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ২০/৩০ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা হয়েছে।
আটককৃতরা হলো, শহরের ষষ্ঠিতলার হাফিজুর রহমান মরা হত্যার আসামি কৃষ্ণবাটি গ্রামের জসিম উদ্দিন ও তার ছেলে ফিরোজ মাহমুদ, শহরের রেলগেট পশ্চিমপাড়ার মৃত রুস্তম গাজীর ছেলে আব্দুল আজিজ এবং মৃত আয়নাল খাঁ’র ছেলে ইব্রাহিম খা।
এ মামলার অন্য আসামিরা হলো, আটক ফিরোজের মা শরিফা বেগম ও স্ত্রী আকলিমা বেগম, তার বাড়ির ভাড়াটিয়া লস্কর, সদর উপজেলার কৃষ্ণবাটি গ্রামের আমিননগর এলাকার মৃত নূরুলল বিশ্বাসের ছেলে হুমায়ুন কবির, কৃষ্ণবাটির মৃত শফিকুল ইসলামের ছেলে আব্দুল করিম, মৃত ফকির আলীর ছেলে হোসেন আলী, আব্দুল মাজেদের ছেলে আলমগীর, ইসমাইল ড্রাইভারের ছেলে শাহিনুর রহমান শাহিন, মৃত মোস্তাকিম মোড়লের দুই ছেলে আতিয়ার রহমান ও মশিয়ার রহমান, মিজান ড্রাইভারের ছেলে বাবু, বাবু ড্রাইভারের স্ত্রী রুপা বেগম, একই এলাকার এনায়েত হোসেন, আজাহার আলীর ছেলে সাহিদা বেগম, বিপ্লব হোসেনের স্ত্রী মনিরা বেগম, ডাক্তার শামসুর রহমান ওরফে খোকন ডাক্তারের স্ত্রী রানু বেগম, মৃত ফকির আলীর তিন ছেলে উজির আলী, মেহের আলী ও জামসের আলী, এনায়েত আলীর স্ত্রী জো¯œা বেগম, একই এলঅকার নূরজাহান, জনির স্ত্রী আলেয়া বেগম, জাকির হোসেনের স্ত্রী জাহানারা বেগম, রবি মিয়ার ছেলে জাকির হোসেন, জুয়েলের স্ত্রী সাথী, রবিউল ইসলামের স্ত্রী রুমা বেগম, মৃত কওছার আলীর ছেলে আলাউদ্দিন, আবু সামা মোড়লের স্ত্রী সাবেরা বেগম, আব্দুল মালেক মিয়ার ছেলে আলামিন হোসেন, সোনা মিয়ার স্ত্রী রহিমা বেগম, মিরাজ হোসেনের ছেলে মিন্টু, ইমদাদ হোসেনের ছেলে রাব্বি, মৃত রশিদ মোড়রের ছেলে তফিল, জামাল খা’র ছেলে ফারুক হোসেন, সিরাজুল ইসলামের ছেলে লিটন, আলমগীরের ছেলে তুহিন, জিয়াদ আলীর ছেলে রহমত আলী, কিনা ফকিরের ছেলে মিলন, সোনা মিয়ার ছেলে সুমন, আলাউদ্দিনের ছেলে আনার কলি, আতিয়ার রহমানের স্ত্রী আক্তারি বেগম, মৃত নূরুল মুন্সি বিশ্বাসের তিন ছেলে আনোয়ার হোসেন, জসিম ও আশা, আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে আকুল ও আলম, মনিরের ছেলে হেলাল এবং মৃত আবুল হোসেন শেখের ছেলে মনা শেখ।
কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই আমির হোসেন মামলায় উল্লেখ করেছেন, এ মামলার প্রধান আসামি ফিরোজ মাহমুদ গত ১৮ নভেম্বর গভীর রাতে শহরের ষষ্ঠিতলা পাড়ার হাফিজুর রহমান মরা হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত আসামি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ফিরোজ মাহমুদকে আটক করে। এসময় অন্যান্য আসামিরা ফিরোজকে ছাড়িয়ে নিতে পুলিশের উপর হামলা চালায়। আসামি আটককালে পুলিশকে সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগে এ মামলা করা হয়েছে।