কেশবপুরে ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা, ৪ পুলিশ ক্লোজড

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি >
এবার কেশবপুরে এক ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে এক পুলিশ কর্মকর্তা জনরোষের শিকার হয়েছেন। খবর পেয়ে থানার ওসিসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুদ্ধ জনতাকে বিচারের আশ্বাস দিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ওই কর্মকর্তাসহ ৪ পুলিশকে ক্লোজ করা হয়েছে।
সাতবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান সামসুদ্দিন দফাদার জানান, জাহানপুর বাজারের আব্দুল লতিফ নামে এক ব্যবসায়ী তার সার ও মুদি দোকানে হালখাতা চলছিলো। এরই মধ্যে ২৫ ডিসেম্বর রোববার রাত ৮ টার দিকে ভালুকঘর পুলিশ ফাঁড়ির আইসি এসআই মিজানুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে নিজের কাছে থাকা ৪ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে দোকানে ঢুকে দোকান মালিককে জানায়, ‘দোকানে ইয়াবা রয়েছে তল্লাশি করবো’। এ সময় তিনি নিজের পকেটে থাকা ইয়াবা বের করে দোকানের ক্যাশ বাক্স তল্লাশির নামে বাক্সে থাকা ৮৫ হাজার টাকাসহ দোকান মালিক আব্দুল লতিফকে হাতকড়া পরিয়ে ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালালে বাজার কমিটিসহ স্থানীয় লোকজন পুলিশ দলকে ঘেরাও করে। এক পর্যায়ে তাদেরতে দোকানের মধ্যে তালাবদ্ধ করে রাখে এবং বিক্ষোভ দেখাতে থাকে।
এ ঘটনায় বাজার কমিটির পক্ষ থেকে কেশবপুর থানা পুলিশকে জানালে রাতেই থানার ওসি সহিদুল ইসলাম সহিদের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্ত দারোগার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়ে মুক্ত করে থানায় নিয়ে যান এবং দোকান থেকে নেয়া টাকা ফেরত দেন।
এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সহিদুল ইসলাম সহিদ সাংবাদিকদের জানান, এসপির নির্দেশে অভিযুক্ত দারোগা ও সঙ্গীয় ৩ পুলিশকে ক্লোজ করা হয়েছে।
এরআগে গত ২৬ অক্টোবর চৌগাছা বাজারে রাবন কুমার নামে এক ইলেকট্রনিক ব্যবসায়ীকে ইয়াবা দিয়ে ফাসাতে গিয়ে ধরা পড়ে এএসআই সিরাজুলও কনস্টেবল সরজেত। সিসি ক্যামেরা কারনে রক্ষা পন ব্যবসায়ী। পরে তাদের ক্লোজ করা হয়েছিল।