বিদায় ২০১৬

মুর্শিদুল আজিম হিরু>

আজ ঘটনাবহুল ২০১৬ খ্রিস্টাব্দের বিদায়ের দিন। রাত ১২টা ১ মিনিটের অপেক্ষায় থাকবে সারা বিশ্বের মানুষ। বিশ্ববাসী মেতে উঠবে নতুন ২০১৭ খ্রিস্টাব্দকে স্বাগত জানাতে। সেই সাথে পুরানো খ্রিস্টাব্দকে বিদায় জানানোর আনুষ্ঠানিকতায়। পৃথিবীর আবর্তনের কারণে বাংলাদেশ থেকে পূর্বের দেশগুলোতে দিন আসে আগে। ফলে অস্ট্রেলিয়া অঞ্চল থেকে শুরু হয় বর্ষবরণের পালা। ঘড়ির কাটায় ১২টা বাজার সাথে সাথে আলোর খেলায় মেতে উঠবে সিডনির অপেরা হাউজগুলো। এরপর পালাক্রমে বর্ষবরণের উৎসব শুরু হবে জাপান, কোরিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে। সে সময় যুক্তরাষ্ট্র ও ল্যাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে চলবে বর্ষবরণের প্রতীক্ষা।

নতুন বছরকে বরণের উৎসাহে কমতি নেই বাংলাদেশেও। নতুন সাজে সেজেছে পর্যটন নগরীগুলো। রাতে রাজধানী থেকে শুরু করে জেলা-উপজেলার শহরগুলোতে বর্ষবরণের উৎসবে মেতে উঠবে তরুণেরা। সবারই কামনা নতুন আশার বাস্তবায়ন ঘটবে নতুন বছরে।

এদেশে বিগত বছরগুলোর মত এবার বর্ষবরণে কঠোরতা আরোপ করেছে করেছে প্রশাসন। অতি উৎিসাহী যুবকরা আইনশৃঙ্খলা মানতে চায় না এদিন। এ কারণেই রাতকে ঘিরে বিশেষ ব্যবস্থা নিবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে উন্মুক্ত স্থানে সব অনুষ্ঠান শেষ করতে হবে। রাত ৮টার মধ্যে সকলকে ঘরে ফিরে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে প্রশাসন। সব মিলেয়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে দেশবাসীকে বর্ষবরণ করতে পরামর্শ দিয়েছে প্রশাসন।

আজ পুরাতন বছর ২০১৬ বিদায় ও নতুন বছর ২০১৭ স্বাগত জানাতে যেয়ে দেশের মানুষ নতুন আশায় বুক বাঁধতে চায়।

বছরের প্রথম সূর্যটা ওঠে বই উৎসব দিয়ে। এ উৎসবে অংশ নিয়েছিল দেশের লাখ লাখ শিশু কিশোর। শিক্ষাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে এ সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় বছরের প্রথম দিনই প্রথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয় নতুন বই। প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রনালয় এদিন দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য ‘বই উৎসব’ হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। গত কয়েক বছরের চেয়ে এবার হরতাল অবরোধের বাধা ছাড়ায় শিক্ষার্থীরা দিয়েছে সকল পরীক্ষা।

পিছনে ফিরে তাকালে দেশের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা ছিল জঙ্গি হামলা, শিশু হত্যা-নির্যাতন, বিদেশি নাগরিক হত্যাকান্ড।

বছরের আলোচিত ঘটনা ছিল জঙ্গি হামলায় রক্তাক্ত গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি। জুলাইয়ে এ ঘটনায় বিদেশি ২০ জন নাগরিকসহ দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহতের ঘটনা বিশ্ব জুড়ে ছিল আলোচিত। এর রেশ কাটতে না কাটতে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ার ঈদের জামায়াতে জঙ্গি হামলায় দুই পুলিশ সদস্যসহ চারজন নিহত হয়। তবে এসব ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারাবিহক অভিযানে জেএমবির শীর্ষ নেতা তামিম চৌধুরীসহ অন্তত ৪৫ জঙ্গি নিহত হয়। এতে জনগণের মনে স্বস্তি ফিরে আসে।

সারা বছর শিশু নির্যাতন ও হত্যার ঘটনা সবচেয়ে বেশি আলোচনায় ছিল। নারী-শিশুর হত্যা-নির্যাতনের চিত্র দেখে দেশবাসী হতবাক হয়। ঝিনাইদহের শৈলকুপার কবিরপুর গ্রামের ভাইয়ের সাথে টাকা নিয়ে বিরোধে তিন শিশু শিবলু, আমিন ও মাহিমকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। জমি নিয়ে বিরোধে নারায়নগঞ্জে একই পরিবারের ৫ জনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এএফএম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে কুপিয়ে হত্যা করে দুবৃত্তরা। ঢাকার কলাবাগানে সমকামী অধিকার কর্মী জুলহাস মান্নানকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ঝিনাইদহে এক পুরোহিতকে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। স্কুলে ছেলেকে দিতে যেতে চট্টগ্রামের নিহত হন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু। যশোরে সহকর্মীর হাতে নিহত হন এক চীনা নাগরিক।

বর্তমান সরকারের সফলতা অনেক। এরমধ্যে উল্লেযোগ্য হলো দেশের ১০ কোটি নাগরিককে মেশিন রিডেবল স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডি কার্ড দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তারই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের ২ অক্টোবর থেকে এই কার্ড বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়।

নির্বাচন কমিশনের এক শুমারী অনুযায়ী দেশের ১০ কোটি ভোটারের কাছ থেকে তাদের দুই হাতের ১০ আঙুলের ছাপ, আইরিশ বা চোখের মণির ছবি সংগ্রহ করে এই কার্ড বিতরন করা শুর হয়।

বিশ্বে সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে বাংলাদেশের প্রধান ও আলোচিত উদ্ভাবন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রকল্প। বাংলাদেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ প্রকল্প এটি। এটি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন কর্তৃক বাস্তবায়িত হবে প্রকল্পটি। বিভিন্ন চড়াই উৎরাই পার করে অনুমোদন পায় এই প্রকল্পটি।

চলতি বছরের ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন অব গভার্নেন্স অ্যান্ড কম্পিটিটিভনেস, প্লান ট্রিফিনিও, গ্লোবাল ফ্যাশন ফর ডেভেলপমেন্ট এবং যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট প্রদেশের নিউ হেভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব বিজনেস হতে ‘আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ লাভ করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। বছরের ১৯ সেপ্টেম্বর ডিজিটাল বিশ্বের পথে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য তাকে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়।

ইয়াং গ্লোবাল লিডার ও ভয়েস অব গ্লোবাল আইসিটি বিভাগে দ্যা ওয়ার্ল্ড ইকোনমি ফোরাম(ডব্লিউইএফ) হতে দুটি পুরস্কার লাভ করেন বাংলাদেশ তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

এ বছর এশিয়া-ওশেনিয়া অঞ্চলের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সংগঠনগুলোর সংস্থা অ্যাসোসিওর দেওয়া দুটি পুরস্কারের আসে বাংলাদেশে। মিয়ানমারের ইয়াঙ্গগুনে অ্যাসোসিও সামিট ২০১৬-এর নৈশভোজে তিনটি বিভাগে অ্যাসোসিও পুরস্কার দেওয়া হয়। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ পায় অ্যাসোসিও ডিজিটাল সরকার পুরস্কার ও আউটস্ট্যান্ডিং আইসিটি কোম্পানি হিসেবে বাংলাদেশের স্মার্ট টেকনোলজিস (বিডি) লিমিটেড পুরস্কার।

স্বাধীনতার ৪২ বছর পর যুদ্ধাপরাধীর রায় কার্যকরের মাধ্যমে দেশের কলঙ্ক মোচনের ধারা সূচিত হয়। এ ধারা আজও অব্যহত আছে। এপর্যন্ত ট্রাইব্যুনাল থেকে ২৩টি রায় হয়েছে। যার মধ্যে এ বছর হয়েছে ২টি রায়। ট্রাইব্যুনাল যশোরের মাওলানা সাখাওয়াতের মৃত্যুদন্ড ও ৭জনের আমৃত্যুদন্ড দেয়। এরমধ্যে যুদ্ধাপরাধীর বিচারের রায় চূড়ান্ত নিস্পত্তি হওয়ার পর কার্যকর হয়েছে ২টি। এপ্রিলে আদালতের আদেশে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রায় কার্যকর করা হয়েছে জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী ও বদর নেতা মীর কাশেম আলীর। এছাড়া আরও কয়েকটি মামলা ট্রাইব্যুনালে বিচারের পর্যায়ে ও তদন্তাধীন আছে। যুদ্ধাপরাধীর রায় পরবর্তী তাদের সমর্থকরা যে হরতাল অবরোধ ডেকেছে তা বয়কট করেছে দেশবাসী।

অপরাধী সাজা পাক তা কে না চায়। এ বছর বহু আলোচিত মামলায় সাজা হয়েছে অপরাধীদের। দেশের বহুলালোচিত রাকিব-রাজন হত্যা মামলার রায় হয়েছে। সাজা পেয়েছে অপরাধীরা। বছরের প্রথম দিন ব্লগার রাজীব হায়দার হত্যা মামলায় ২ জনের মৃত্যুদন্ড ও ৬ জনকে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে আদালত। আওয়ামীলীগ নেতা আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলায় ৬ জনের ফাঁসি বহাল রাখে আদালত। যশোরের ঝিকরগাছার শিশু মিরাজ হত্যা মামলার রায়ে ৫ জনের ফাঁসির আদেশ দেয় আদালত। আদালত অভয়নগরের ডাক্তার আকরাম হত্যা মামলায় সাবেক এমপিসহ ৮ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের আদেশ দেয়। সাংবাদিক মানিক সাহা হত্যা মামলার রায়ে ৯ আসামির যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে আদালত। ডাক্তার শফিক হত্যা মামলায় ২ আসামিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার আদেশ দেয় আদালত। সকলের প্রত্যাশা নিরাপরাধ ব্যক্তি যেন কারো দ্বারা প্রভাবিত হয়ে সাজা ভোগ না করে এবং অপরাধীরা যেন কোন ভাবে আইনের ফাঁক ফোঁকর দিয়ে বের হয়ে যেতে না পারে।

২০১৬ সালে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফিরে তাকালে বহু ঘটনা আমাদের স্মৃতিতে ভেসে ওঠে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি জামায়াত জোটের অস্তিত্ব বিলীন হওয়ার পথে। রাজনীতির মাঠে বিএনপি-জামায়াত জোট এক প্রকার অনুপস্থিত ছিল সারাবছর। কোন আন্দোলনে সফলতা আনতে পারেনি এ জোট। সকল আন্দোলন দানা বেধে ওঠার আগে রাজনৈতক ভাবে মোকাবেলা করে নিশ্চহ্ন করে দিয়েছে বর্তমান ক্ষমতাসীল দল। দেশের মানুষ আর রাজনীতির নামে হানাহানি খুন-জখম দেখতে চায়না।

২০১৬ সালে আমাদের মাঝ থেকে চির বিদায় নিয়েছেন অনেক মনীষী। গোটা জাতিকে শোক সাগরে ভাসিয়ে যশোরের মাটি ও মাঠের মানুষ আইয়ুব হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক সংসদ আলী রেজা রাজু, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বাদী মহিতুর রহমান, বিএনপি নেতা হান্নান শাহ, জাতীয় অধ্যাপক ডাক্তার এআর খান, সব্যসাচী লেখক শামসুল হক, কবি রফিক আজাদ,শহীদ কাদরীসহ আরও কত মনীষী চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

খেলাধুলার মাঝে সবচেয়ে বড় হয়ে উঠেছে ক্রিকেট। ক্রিকেট উম্মাদনা আমাদের চিরকালের। এ বছর বাংলার টাইগারদের অনেক জয়। সিরিজ জয় করে ক্রীড়া ক্ষেত্রে বিশ্ব দরবারে আমাদের মাথা উচু করে দিয়েছে ক্রিকেটারা। নতুন নতুন রেকর্ড অর্জন করেছে আমাদের ক্রিকেটারা। আন্তজাতিক অংঙ্গনে খেলাধুলায় পিছিয়ে নেই আমাদের মেয়েরা। দক্ষিন এশিয়া গেমসে সাতারে যশোরের মেয়ে মাহফুজার দুইটি স্বর্ণপদক জয় আমাদের দেশের সুনাম শিখরে তুলে দিয়েছে। আগামীতে ক্রীড়া অংঙ্গনে এ ধারা অব্যহত রাখবে আশাবাদ দেশবাসীর। আরও কতনা ঘটনা ঘটেছে এ বছরে। অনেক ঘটনা উঠে আসেনি এ প্রতিবেদনে। সকল দুঃখকষ্ট ভুলে নতুন বছর সবার জন্য সুখকর হোক এ কামনা সকলের।