বেনাপোলে শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে কোটি টাকা মূল্যের এক ট্রাক ভারতীয় পণ্য আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক>
বেনাপোল বন্দর এলাকা থেকে কাগজপত্রবিহীন এক ট্রাক ভারতীয় গার্মেন্টস ও ইমিটেশন জুয়েলারি জব্দ করেছে কাস্টম কর্তৃপক্ষ। মালামালগুলো কাগজপত্র ছাড়াই ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করে এবং কাস্টমসের কোনো কাগজপত্র ছাড়াই বন্দর থেকে বের হচ্ছিল। জব্দকৃত মালামালের মূল্য এক কোটি টাকা বলে জানায় কাস্টম কর্তৃপক্ষ।
বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার মো: শওকাত হোসেন জানান, গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানা যায়, সোমবার রাতে বেনাপোল বন্দরের ২৯ নম্বর শেড থেকে একটি কাভার্ডভ্যানে ভারতীয় থ্রি-পিস ও ইমিটেশন জুয়েলারি বোঝাই করে বন্দর এলাকায় অবস্থান করছে। যার সাথে কাস্টম থেকে খালাসকৃত কোনো কাগজপত্র নেই। এ সংবাদ পেয়ে কাস্টমসের স্পেশাল এসাইনমেন্ট গ্রুপ (স্যাগ) এর রাজস্ব অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুনের নেতৃৃত্বে বন্দর এলাকা থেকে একটি কাভার্ডভ্যান জব্দ করা হয়। এসময় গাড়িতে থাকা মালামালের কোনো কাগজপত্র পাওয়া যায়নি। পরে গাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় থ্রিপিস, ইমিটেশন জুয়েলারি ও কসমেটিকস সামগ্রী জব্দ করা হয়। বর্তমানে পণ্য চালানটি কাস্টমস হাউজের মধ্যে রয়েছে। মালামাল গগনা করে সিজার লিস্ট করা হবে। তবে প্রাথমিক ভাবে আটক পণ্যের মুল্য কোটি টাকা বলে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।
আলিফ এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ট্রান্সপোর্ট বন্দরের ২৯ নম্বর শেড থেকে মালামালগুলো ট্রাকে লোড করে। তবে মালামালের প্রকৃত মালিকের সন্ধান এখনো পাওয়া যায়নি। ট্রাকের ড্রাইভার হেলপার ও স্কটকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানায় মামলা হয়েছে।
চেকপোস্টে কার্গো শাখা থাকার পরও ভারত থেকে কি ভাবে এই পণ্য বন্দরে প্রবেশ করেছে। কাগজপত্র বা এন্ট্রি ছাড়া কি ভাবে এসব মালামাল বন্দরের ২৯ নং শেডে ছিল তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে একটি পাচারকারী চক্র সরকারের লাখ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকি দিয়ে বিনা এন্ট্রিতে পণ্যচালান নিয়ে গেলেও তা ধরা পড়ছে যৎসামান্য। বন্দরের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারি এ ঘটনার সাথে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি পণ্য চালান এন্ট্রি বা কাগজপত্র ছাড়াই এদেশে প্রবেশ করলো কি ভাবে সেটা কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানেন না এটাও ভাববার বিষয় বলে দাবি বন্দর ব্যবহারকারীদের।