বিএনপির ভিশনতো আমরাই বাস্তবায়ন করে ফেলছি: প্রধানমন্ত্রী

বিডিনিউজ >
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ‘ভিশন ২০৩০’ তে আওয়ামী লীগের ‘রূপকল্প ২০২১’ এর ‘প্রতিচ্ছবি’ দেখতে পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বুধবার সংসদ অধিবেশনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বিএনপি তাদের ভিশন ২০৩০-এ যে বিষয়গুলো উল্লেখ করেছে, তার অধিকাংশই বর্তমান সরকার ইতোমধ্যে পূরণ করেছে। আগামী অর্থবছরে এর বাকি কাজগুলোও শেষ করা হবে।”
বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া গত ১০ মে সংবাদ সম্মেলন করে তার এই ‘ভিশন ২০৩০’ তুলে ধরেন। ক্ষমতায় গেলে বিএনপি কী কী করতে চায়, তার বিবরণ সেখানে তিনি দিয়েছেন।
তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের দেওয়া ‘রূপকল্প ২০২১’ এর প্রসঙ্গ তুলে ধরে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বলে আসেছেন, বিএনপি তাদের ‘অনুকরণ’ করছে।
গত ২০ মে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় এ প্রসঙ্গে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, “আমরা দিয়েছি বলেই তারা দিয়েছে। মানুষ তো মানুষকে দেখেই শেখে।”
সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ ফজিলাতুন নেসা বাপ্পির এক প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী বুধবার সংসদে বলেন, “বিএনপিকে মনে রাখতে হবে, রূপকল্প বাস্তবায়নে প্রয়োজন উপযুক্ত কৌশল, যোগ্য নেতৃত্ব ও সুসংগঠিত দল। এর আগে নেতিবাচক রাজনীতি, অনিয়মতান্ত্রিক তৎপরতায় তারা ফিরে যাবেন না- এ বিষয়ে প্রতিশ্র“তিবদ্ধ হতে হবে।”
রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বিএনপির ‘ভিশন ২০৩০’ সম্পর্কে শেখ হাসিনার মূল্যায়ন- ক্ষমতায় গেলে কী কী করবে তার দীর্ঘ ফর্দ সেখানে দেওয়া হলেও কীভাবে কোন পদ্ধতিতে তার বাস্তবায়ন হবে, কীভাবে অর্থায়ন হবে তা স্পষ্ট নয়। “এটি অনেকটা নির্বাচনী ইশতেহারের মত হয়ে গেছে। এই ইশতেহার বাস্তবায়ন করতে হলে তাদের আগে ক্ষমতায় যেতে হবে। তারা সংসদীয় পদ্ধতি ও গণভোট পদ্ধতিসহ আরও যেসব মৌলিক পরিবর্তন করার কথা বলছেন তার জন্য সংসদে দুই-তৃতীংশ ভোট লাগবে।”

কিন্তু এর আগে দুই দফা প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা খালেদা জিয়ার দল আবারও সেই পর্যায়ে যেতে পারবে কি না- সে বিষয়ে সংশয় প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ প্রধান হাসিনা।

“বিএনপি তাদের শাসনামলে অনিয়ম-দুর্নীতি, জঙ্গি পৃষ্ঠপোষকতার যে দৃষ্টান্ত রেখেছে, এরপর ক্ষমতার বাইরে থেকে জ্বালাও পোড়াওসহ অনিয়মতান্ত্রিক তৎপরতা দিয়ে যে নেতিবাচক ইমেজ তৈরি করেছে, তা কাটিয়ে উঠে এতটা জনআস্থা অর্জন তাদের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ।”

বিএনপির রাজনীতির সমালোচনায় তিনি বলেন, “জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, গ্রেনেড হামলা, সংসদ সদস্য হত্যাসহ নানা ধরনের সন্ত্রাসী কাজে যারা পারদর্শী। তারা আবার জনগণকে কী আশার বাণী শোনাবে? বিএনপি তাদের শাসনামলে পাঁচ বছর মেয়াদী পরিকল্পনাও গ্রহণ করেনি। তারা দুতিন বছরের পরিকল্পনা নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করেছিল।”
আওয়ামী লীগের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ এর কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সেই নির্বাচনী ইশতেহারের আলোকে রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়ন এখন শেষ পর্যায়ে।
“দীর্ঘমেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করে আমরা ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছি। রূপকল্পের বাস্তব অভিজ্ঞতার ওপর ভিত্তি করে আগামী দিনের বাংলাদেশকে বিশ্বে অগ্রগামী ও উন্নত জনপদে পরিণত করতে আমরা জাতিকে আমাদের এই মেয়াদের মধ্যেই রূপকল্প ২০৪১ উপহার দেব।”
আওয়ামী লীগের ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্যে ২০৫০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ‘বিশ্বের প্রথম সারির উন্নত দেশের সমপর্যায়ে’ উন্নীত করার লক্ষ্য ঠিক করার কথাও প্রধানমন্ত্রী মনে করিয়ে দেন।
আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী রামপালে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পক্ষে সরকারের যুক্তিগুলো তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত তিনটি সাইটের মধ্যে পরিবেশগত এবং অন্যান্য দিক দিয়ে সবচেয়ে সুবিধাজক ও গ্রহণযোগ্য হওয়ায় রামপালকে বেছে নেয়া হয়েছে। কিন্তু একটি মহল ‘ভিত্তিহীন, কাল্পনিক ও মনগড়া বক্তব্য’ দিয়ে সুন্দরবন ধ্বংস হবে বলে ‘মিডিয়ায় তথ্য প্রচার করে’ মানুষকে বিভ্রান্ত করছে।