অনৈতিকতার অভিযোগে নড়াইলে এসআই আব্দুল করিমকে সাময়িক বহিস্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক, নড়াইল :
বিয়ের প্রলোভনে এক নারীর সাথে শারীরিক সম্পর্কের অভিযোগে পুলিশ কর্মকর্তা এসআই আব্দুল করিমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ২০ মে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হলেও বিষয়টি পরে জানাজানি হয়। এসআই আব্দুল করিম নড়াইলের শেখহাটি পুলিশ ক্যাম্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (আইসি) ছিলেন। সাময়িক বরখাস্তের পর তাকে নড়াইল পুলিশ লাইনসে রাখা হয়েছে।
এদিকে ভূক্তভোগী ওই নারী বলেন, ‘আব্দুল করিম বিয়ের প্রলোভনে আমার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করলে দুই মাসের গর্ভবতী হয়ে পড়ি। তাকে বিয়ে করতে বললেও নানা চলছাতুরি করে। বিষয়টি এলাকায়ও জানাজানি হয়ে য্য়া। ইজ্জত সম্মান হারিয়ে আমি এখন নিঃস্ব। ন্যায় বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছি। আমার আত্মসম্মানের স্বীকৃতি না পেলে আত্মহত্যা ছাড়া আমার আর কোনো পথ খোলা থাকবে না।’
স্ত্রীর মর্যাদা পেতে এসআই করিমের বিরুদ্ধে নড়াইলের পুলিশ সুপার বরাবর আবেদন করেন ভূক্তভোগী ওই নারী। লিখিত অভিযোগে জানা যায়, এসআই আব্দুল করিম নড়াইলের কালিয়া থানায় কর্মরত থাকাকালীন পৌর এলাকার চাঁদপুরের এক নারীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক গড়েন। ফলে ওই নারী গর্ভবতী হয়ে পড়ে। বিষয়টি টের পেয়ে এসআই করিম ওই নারীকে গর্ভপাত ঘটানোর চাপ দেয়। গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে অস্বীকৃতি জানালে পরবর্তীতে চিকিৎসার নামে গত ১৪ মার্চ ওই নারীকে ইনজেকশন দেয়া হয়। ইনজেকশন নেয়ার পর ওইদিন রাতেই তার দুইমাসের গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়ে যায়।
পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে এসআই করিমকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত শেষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।