লন্ডনে বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ড, নিহত ৬

নিউজ ডেস্ক>
লন্ডনের কেন্দ্রস্থলে একটি ২৭ তলা আবাসিক ভবন আগুনে জ্বলছে।

লন্ডনের কেন্দ্রস্থলে সারা রাত ধরে একটি ২৭ তলা আবাসিক ভবন আগুনে জ্বলার পর সেখানে ৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা করছে পুলিশ।

স্থানীয় সময় বুধবার রাত ১২টা ৫৪ মিনিটে ল্যাঙ্কাস্টার ওয়েস্ট ইস্টেটের লাটিমার রোডের গ্রেনফেল টাওয়ারে আগুন লাগার খবর প্রথম পাওয়া যায় বলে পুলিশের বরাতে জানিয়েছে বিবিসি।

এর পরপরই ৪০টি ফায়ার ইঞ্জিন নিয়ে প্রায় ২০০ দমকল কর্মী আগুন নেভানোর চেষ্টা শুরু করেন। এর তিন ঘন্টা পরেও ওই ভবন থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, উত্তর কেনসিংটনের গ্রেনফেল টাওয়ারে মানুষ আটকা পড়ে আছে। সাহায্যের জন্য চিৎকার করছে।

দমকলকর্মীরা বহু মানুষকে উদ্ধার করেছে। তবে লন্ডনের মেয়র সাদিক খান বলেছেন, বহু মানুষের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

ভবনটিতে এখনও আগুন জ্বলছে এবং এটি ধসে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে লন্ডন দমকলের কমিশনার ড্যানি কটন বলেন, “এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা। দমকল কর্মী হিসেবে আমার ২৯ বছরের অভিজ্ঞতায় এ ধরনের ব্যাপক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা আমি আর দেখিনি।”

আগুন লাগার কারণ উদঘাটন করা যায়নি বলেও জানিয়েছেন তিনি। মধ্যরাতের পর ভবনটিতে আগুন লাগার সময় সেখানে কয়েকশ’ মানুষ ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাদের বেশির ভাগই ঘুমাচ্ছিল।

মেট্রোপলিটন পুলিশ কমান্ডার স্টুয়ার্ট কান্ডি বলেছেন, তিনি ৬ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হয়েছেন। কিন্তু এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

এ ঘটনায় এ পর্যন্ত আহত ৭০ জনের বেশি মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে লন্ডন অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস। এদের শহরের পাঁচটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে তারা। আহতদের ২০ জনের অবস্থা গুরুতর।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আসা ছবি ও ভিডিওতে নিচ থেকে পুরো ভবনটিই জ্বলতে দেখা গেছে।

বিবিসি’র একজন প্রতিবেদক ঘটনাস্থল থেকে জানিয়েছিলেন, জ্বলন্ত ভবনটি থেকে বিভিন্ন অংশ খুলে নিচে পড়ছে। সেখান থেকে বিস্ফোরণ আর কাচ ভাঙার শব্দ পাওয়া যাচ্ছে।

“ভবনটি ভেঙে পড়তে পারে এই আশঙ্কায় পুলিশ আশপাশ থেকে সবাইকে সরিয়ে দিচ্ছে।”

চ্যানেল ফোরের উপস্থাপক জর্জ ক্লার্ক বিবিসি’কে বলেছেন, ভবনটি থেকে প্রায় ১০০ মিটার দূরে দাঁড়ানো অবস্থাতেও তার মনে হচ্ছিল তিনি হয়ত ছাইয়ে ঢাকা পড়ে যাবেন।

ক্লার্ক জানান, ভবনে আটকা পড়া একজনকে তিনি ওপর থেকে টর্চের আলো দিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করতেও দেখেছেন।

টিম ডাউনি নামের আরেক প্রত্যক্ষদর্শী বিবিসি’কে বলেছেন, ভবনটির একটি অংশ পুড়ে শেষ হয়ে গেছে।

“অবস্থা খুব খারাপ, খুব খারাপ। এরকম অবস্থা আমি আগে কখনও দেখিনি।”