যশোরে ২১ প্রতিবন্ধী শিশুকে পোশাক বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক >
কাকলী প্রতিবন্ধী হওয়ায় জন্মের পর বাবা তাকে ও তার মাকে ছেড়ে চলে যায়। তার মাও কাকলীকে রেখে অন্য জনের সাথে সংসার শুরু করে। এরপর কাকলীর ঠিকানা হয় বিধবা নানীর কাছে। যার জীবন চলে অন্যের বাড়িতে কাজ করে। কাকলী ঈদ বোঝে না, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হওয়ার কারণে কাকলীর সেটা বোঝা সম্ভব নয়। তবে কাকলী নতুন পোশাক বোঝে। সে নতুন পোশাক পেয়ে হেসেছে। হয়েছে খুশি।
শনিবার বিকেলে স্বপ্নদেখোর আয়োজনে যশোর সদরের এনায়েতপুর গ্রামে প্রতিবন্ধী ২১ জন শিশুর মাঝে নতুন ঈদ পোশাক বিতরণ করা হয়। কাকলীও তাদের মধ্যে একজন। নতুন ঈদ পোশাক বিতরণের পর তাদের অভিভাবকদের জন্য ইফতার আয়োজন করে স্বপ্নদেখো পরিবার।
এ আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অন্যতম খেলয়ার মান্নাফ রাব্বি। তিনি স্বপ্নদেখোর এই মহতী আয়োজনকে স্বাগত জানান এবং ভবিষ্যতে স্বপ্নদেখোর মাধ্যমে প্রতিবন্ধী শিশুদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, আমি একজন মানুষ হিসেবে আরেকজন মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারছি এটাই আমার ভাল লাগা। মানুষের কল্যাণে কিছু করতে পারলে আমার ভালো লাগে, আপনারা দোয়া করবেন যেন আগামীতে মানুষের কল্যাণে আরো কাজ করে যেতে পারি।
উপস্থিত সকলকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন স্বপ্নদেখোর সভাপতি জহির ইকবাল নান্নু। তিনি বলেন, প্রথমেই মান্নাফ রাব্বি ভাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা এই প্রতিবন্ধী শিশুদের পাশে এসে দাঁড়ানোর জন্য। প্রতিবন্ধীরা আমাদের বোঝা নয় আমাদের সম্পদ। তাদেরকে সঠিক পরিচর্চার মাধ্যমে গড়ে তুলতে পারলে সমাজ ও দেশ এগিয়ে যাবে। স্বপ্নদেখো নিয়মিত এসকল প্রতিবন্ধীদের সেবাপ্রদান করে আসছে। আগামীতে আরো বড় পরিসরে প্রতিবন্ধীদের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের।