মহেশপুর সীমান্তে বিএসএফর গুলিতে দুই যুবক নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক,মহেশপুর >
ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশি তরুণ নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
নিহতরা হচ্ছে উপজেলার খোসালপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে সোহেল রানা (১৮) ও শ্যামকুড় গ্রামের কাউসার আলীর ছেলে হরুন অর রশিদ (২৩) বলে জানিয়েছেন গ্রামবাসী।
এঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে সীমান্তের ওপারে ভারতের নদীয়া জেলার হাসখালী থানার কুমারীপাড়া গ্রামে বিএসএফ ক্যাম্প এলাকায় রাস্তার উপর ।
নেপা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য প্রহ্লাদ কুমার হালদার জানান, গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে সোহেল রানা ও হারুন অর রশিদ ভারত থেকে সীমান্তের কাটাতারের বেড়া কেটে দেশে আসার সময় ভারতের কুমারী ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি চালায়। গুলিতে ভারত সীমান্তে অভ্যন্তরেই তারা নিহত হয়। পরে তাদের লাশ বিএসএফ সদস্যরা তাদের রাস্তার উপর থেকে নিয়ে যায়।
খোসালপুর বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার নায়েক সুবেদার আবু তাহের জানান, বাংলাদেশের বিপরীতে ভারতের কুমারীপাড়া এলাকায় বাংলাদেশি দু’যুবককে ভারতের কুমারী ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা গুলি করে মেরে ফেলেছে। পরে তাদের লাশ নিয়ে গেছে বলে লোক মারফত জানতে পেরেছি।
তিনি আরও জানান, গরু পাচারকারীদের খপ্পরে পড়ে নিহত দুই কিশোর ভারতে অভ্যন্তরে ঢুকেছিল। লাশ দুইটি একটি কলা বাগানের মধ্যে পড়ে আছে বলে জানতে পেরেছি। দুপুর দুইটার দিকে আমরা প্রতিবাদপত্র দিতে গিয়েছি, কিন্তু বিএসএফ আমাদের চিঠি গ্রহণ করেনি।
নেপা ইউপি চেয়ারম্যান শামছুল হক মৃধা জানান, আমার ইউনিয়নের মধ্যে খোসালপুর গ্রামের সোহেল রানা রয়েছে। শুনেছি সে ভারত থেকে সকালে চোরাই পথে আসার সময় বিএসএফের গুলিতে নিহত হয়েছে।
খালিশপুর ৫৮ বিজিবির অধিনায়ক লে: কর্ণেল জিল্লুর রহমান জানান, মহেশপুরের খোসালপুর সীমান্তের বিপরীতে দুই জন নিহত হওয়ার খবর শুনেছি।
এদিকে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন খালিশপুর ৫৮ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল জিল্লুর রহমান।
তিনি বলেন, ‘আমরা নিশ্চিত হয়েছি ভারতের কুমারীপাড়া এলাকায় দুই বাংলাদেশি বিএসএফের গুলিতে নিহত হয়েছে। পতাকা বৈঠক ও তাদের লাশ ফেরত আনার প্রক্রিয়া আমরা শুরু করেছি।’