এক বছরের মধ্যে ভিক্ষুকদের পুনর্বাসিত ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে …..এমপি শেখ আফিল উদ্দিন

বেনাপোল প্রতিনিধি>
৮৫ যশোর-১ (শার্শা)’র সাংসদ আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন বলেন, মহান সৃষ্টিকর্তা প্রত্যেক মানুষকেই সুস্থ সবল ও কর্মক্ষম করে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। হয়ত কিছু মানুষ বিকলঙ্গ বা বাক প্রতিবন্ধী হতে পারে। তাই বলে এই নয় যে সুস্থ শরীরে নিজে একজন পরিপূর্ণ মানুষ হয়ে আরেকজন মানুষের কাছে হাত পেতে ভিক্ষা নিতে হবে। মনে রাখতে হবে, যিনি ভিক্ষা দিচ্ছেন তিনিও মানুষ আর যিনি গ্রহণ করছেন তিনিও মানুষ। তাই মানুষ হয়ে মানুষের কাছে হাত পেতে ভিক্ষা না নিয়ে কর্মের মাধ্যমে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে দু’হাত পেতে ভিক্ষা চাওয়াটা যেমনি ইবাদতের তেমনি মঙ্গলজনকও উপায়। বুধবার বিকেলে শার্শা উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত উপজেলা কমপ্লেক্স অডিটরিয়ামে যশোর জেলার শার্শা উপজেলায় পুনর্বাসিত ও কর্মসংস্থানকৃত ভিক্ষুকদের সাথে ইফতার মাহফিল ও ঈদ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হিসাবে কথা বলেন তিনি।
শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুস সালাম এঁর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধাণ অতিথি শেখ আফিল উদ্দিন এমপি আরো বলেন, বাংলার মানুষ যাতে দুই বেলা দু’মুঠো অন্ন পায়, বস্ত্র পায়, বাসস্থান পায়, চিকিৎসা পায়, শিক্ষা পায় তার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্দোলনের ডাক দিয়ে এদেশটাকে পরাধীনতার শিকল ভেঙ্গে মুক্ত করেছিল। স্বাধীন বাংলাদেশ উপহার দিয়ে তার বৃহৎ উন্নয়নমুখী স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে চলেছিল। সেখানে দেশের মধ্যে বিভিন্ন রূপ নিয়ে থাকা ৭১-এর পরাজীত শক্তিরা তা মেনে নিতে পারেনি। তাই তারা বঙ্গবন্ধুসহ তার স্বপরিবারে হত্যা করে। আল্লাহর অশেষ মেহেরবানিতে আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার বোন শেখ রেহেনা বেঁচে যান। বঙ্গবন্ধুর সেই লালিত স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে আজ তাঁর গুণধর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করছেন। এসাথে অভাবের তাড়নায় যারা ভিক্ষা করছেন বা যাদের বাসস্থান নেই, তাদের জন্যও সরকার কাজ করছে। আগামী এক বছরের মধ্যে ভিক্ষুকদের পুনর্বাসিত ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তিগত ভাবেও ভিক্ষুকদের কর্মসংস্থানের জন্য আমার যাবতীয় সহযোগিত থাকবে বলে জানালেন এমপি আফিল উদ্দিন।
তিনি বলেন, এখনই যদি কোনও ভিক্ষুক বা বেকার নারী-পুরুষ কর্ম করতে চান তাহলে যেকোন সময়ে আফিল জুট মিলে চলে আসলে কর্ম করতে পারবেন। তাতে হাত পেতে মানুষের কাছে ভিক্ষা করার চাইতে সম্মানের সাথে বেঁচে থাকতে পারবেন।

আলোচনা শেষে সাংসদ শেখ আফিল উদ্দিন দলীয় নেতা-কর্মী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে ভিক্ষুকদের মাঝে ঈদ সামগ্রী তুলে দেন।

এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শার্শা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুজ্জামান, শার্শা উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভূমি) আব্দুল ওয়াদুদ, কৃষি কর্মকর্তা হীরক কুমার, মৎস্য সিনিয়র কর্মকর্তা আবুল হাসান, সমবায় কর্মকর্তা আজিজুর রহমান, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য ইব্রাহিম খলিল, শার্শা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, শার্শা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও যশোর জেলা পরিষদের সদস্য ওহিদুজ্জামান ওহিদ, সাধারণ সম্পাদক ও শার্শা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সোয়ারাব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, বেনাপোল ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব বজলুর রহমান, বাহাদুরপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রহিম সরদারসহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ।