আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় রাখুন: শেখ হাসিনা

বিডিনিউজ >
আগামী নির্বাচনেও ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় রাখতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
আওয়ামী লীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শুক্রবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নতুন ভবনের ভিত্তিফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বক্তব্যে এই আহ্বান জানান তিনি।
জুমাতুল বিদা এবং লাইলাতুল কদরের জন্য এবার সংক্ষিপ্ত কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করেছে দেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দলটি।
সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবন এবং বঙ্গবন্ধু এভিনিউসহ সারা দেশে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।
সকালে ধানম-ির ৩২ নম্বর সড়কে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ফুল দেওয়ার পর সভানেত্রী দলীয় নেতাদের নিয়ে জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। শেখ হাসিনার সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, সাহারা খাতুন ও মোশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
এরপর বঙ্গবন্ধু এভিনিউর অনুষ্ঠানে যান শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগের হাতে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি হচ্ছে। এ উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগকে আবার সরকার গঠন করতে হবে। দেশবাসীকে বলব, আওয়মী লীগকে আবারও দেশসেবা করার সুযোগ দিন।
“আওয়ামী লীগ দেশের অগ্রগতি এনে দিয়েছে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। এটা কেবল আওয়ামী লীগই পারে। জাতি যেন তা মনে রাখে।”
নিজ দলের নেতা-কর্মীদের জাতির পিতার আদর্শের সৈনিক হিসেবে গড়ে ওঠার তাগিদও দেন শেখ হাসিনা।
“দেশের সেবা করুন, মানুষের সেবা করুন। কী পেলাম, কী পেলাম না: সেটি বড় কথা নয়। দেশকে, মানুষকে কী দিতে পারলাম; সেটিই বড় কথা।”
যারা বিভিন্ন সময়ে বঙ্গবন্ধুর সমালোচনা করেছিলেন, তাদের সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, “যারা তখন লিখেছিল বঙ্গবন্ধু সফল বিপ্লবী, দক্ষ সংগঠক, কিন্তু ভালো শাসক নন; তারা হয় স্বাধীনতাবিরোধী ছিল, না হয় স্বাধীনতা বিরোধীদের দোসর হিসেবে কাজ করেছিল।”
বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে কাজ করে যাওয়ার কথাও বলেন তার মেয়ে শেখ হাসিনা।
বাংলাদেশকে ‘উদীয়মান সূর্য’ অভিহিত করে তিনি বলেন, “দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। কিন্তু আমি জানি, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে এখনও অনেক ষড়যন্ত্র চলছে। স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি, তাদের পদলেহনকারী ও দালালদের অভাব নেই। তারা ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে, তারা ষড়যন্ত্র করবেই।”
আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে বলেন সভানেত্রী শেখ হাসিনা।
“আওয়ামী লীগ দেশকে স্বাধীন করেছে। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশের জন্য যা যা করা দরকার, করে গিয়েছিলেন। তিনি যদি আর পাঁচটি বছর বেঁচে থাকতে পারতেন, তাহলে তখনই বাংলাদেশ উন্নত, সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হত।”
“এদেশের যা কিছু অর্জন আওয়ামী লীগই এনে দিয়েছে। এই সংগঠনই বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার পথ দেখাচ্ছে। আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ একে অপরের পরিপূরক,” বলেন তিনি।