প্রিয় শিক্ষক শফিউদ্দিন স্মরণে চৌগাছায় বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সমাবেশ

বাবুল আক্তার, চৌগাছা (যশোর)>
যশোরের চৌগাছার সর্বজন শ্রদ্ধেয় শিক্ষক স্থানীয় শাহাদৎ পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রয়াত প্রধান শিক্ষক একে শফিউদ্দিনের স্মরণে নাগরিক শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার সামাজিক নেতৃবৃন্দ ও প্রয়াতের সাবেক শিক্ষার্থীদের আয়োজনে ঈদুল ফিতরের পরের দিন ওই বিদ্যালয় মাঠে এ সভা অনুষ্ঠি হয়। সভায় মরহুম শফিউদ্দিনের সাবেক শিক্ষার্থী যারা এখন কর্মজীবনে দেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন তাঁদের উপস্থিতিতে স্মরণ সভাটি জনসমাবেশে রূপ নেয়। দেশে-বিদেশে অবস্থানরত চিকিৎসক, প্রকৌশলী, চার্টাড একাউন্টটেন্ড, সচিব, উপসচিব, জনপ্রতিনিধিসহ রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা শিক্ষার্থীরা ছুটে আসেন তাদের প্রিয় শিক্ষাগুরুর স্মরণ সভায়।
বিদ্যালয়ের সভাপতি যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. মনিরুল ইসলাম মনির সভায় সভাপতিত্ব করেন।
পৌর মেয়র নূরউদ্দীন আল-মামুন হিমেলের পরিচালনায় বিকাল তিনটায় শুরু হয়ে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে এই শোক সভা। সভায় একে শফিউদ্দিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন অনেক ছাত্র।
বক্তারা বলেন, একে শফিউদ্দিন আহমদ স্যার এ অঞ্চলের আধুনিক শিক্ষার অন্যতম পথিকৃত ছিলেন। নিরাহংকারী এই মানুষ চৌগাছার হাজার হাজার ছাত্রের অসম্ভব প্রিয় একজন মানুষ ছিলেন। তিনি শুধু শিক্ষানুরাগীই ছিলেন না,ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক। ৭১ সালে কারাবরণও করেছেন স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশ নিয়ে।
ছাত্র ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য নবী নেওয়াজ বলেন, সেময় নির্ভৃত এই জনপদে এক বিশাল আলোর মশাল জ্বালিয়ে ছিলেন আমাদের সবার প্রিয় প্রধান শিক্ষক একে সফিউদ্দিন আহমেদ। যার আলোয় আলোকিত হয়ে আজ দেশে বিদেশে আলো ছড়াচ্ছেন অগণিত আলোর বাতি। যে কারণে তিনি কিংবদন্তী। তাঁর মৃত্যু নেই।
ছাত্র যশোর শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান আমিরুল আলম খান বলেন,“ শিক্ষকের প্রভাব অনন্তকাল গিয়েও শেষ হয়না। শফি স্যার নিছক পাঠদানকারী শিক্ষক নন, তিনি ছিলেন জ্ঞানবুদ্ধ, আত্মার মিস্ত্রী, ছিলেন ভরা কলসের মত। হাজারো জ্ঞানের মাঝেও কখনও তাঁর মধ্যে এক চিলতে অহংকার দেখিনি।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক মিজানুর রহমান, মেডিকেল অফিসার জয়নাল আবেদিন, বিশিষ্ট কলামনিস্ট মিজানুর রহমান মধু, খুলনার সিভিল সার্জন ডা. আব্দুর রাজ্জাক, প্রবীণ শিক্ষক মিজানুর রহমান শান্তি মৃধা, প্রকৌশলী (সহকারী সচিব) আব্দুল মান্নান, সিলেট বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক ইসমাইল হোসেন, উপজেলা বিএনপির সভাপতি জহুরুল ইসলাম, শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বর্তমান প্রধান শিক্ষক আজিজুর রহমান, প্রকৌশলী সামছুল আলম ও অহিদুল আলম খান, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য দেওয়ান তৌহিদুর রহমান, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বিএম সেলিম রেজা, বাঁচতে শেখার সিনিয়র কর্মকতা (স্যারের বড় ছেলে) সালাউদ্দিন, চৌগাছা মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোস্তানিছুর রহমান, চৌগাছা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম কবির, সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম মিয়া, ওয়ান ব্যাংকের এভিপি গাজী আলাউদ্দিন, (স্যারের ছোট ছেলে), জীবননগর উপজেলার নির্বাহী অফিফসার সেলিম রেজা, অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, যশোর শিক্ষা বোর্ডের পরিদর্শক অমল কুমার বিশ্বাস, চার্টাড একাউনটেন্ড রোকনুজ্জামান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তা ইদ্রিস আলী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ইমদাদ জাহিদ, বিশিষ্ট শিল্পপতি আব্দুল কাদের পিন্টু, প্রকৌশলী মাসুুম কামাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক মাহামুদুল হাসান, যশোর জিলা স্কুলের সহকারি প্রধান শিক্ষক সোয়েব আহমেদ, চৌগাছা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কামাল আহমেদ, মহিলা কলেজের প্রভাষক অমেদুল ইসলাম, সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মনিরুজ্জামান লাজন প্রমুখ।
ঝিকরগাছা উপজেলার দিঘলসিংহা গ্রামে ১৯৩৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে জন্ম গ্রহন করেন একে শফিউদ্দিন আহমদ। মাত্র ছয় বছর বয়সে বাবা মৌলভি সদরউদ্দীনকে হারান তিনি। চাচা মৌলিভি আব্দুল আজিজের অনুপ্রেরনায় ১৯৬১ সালে কৃতিত্বের সাথে বিএ পাশ করেন। ১৯৬৩ সালে চৌগাছা শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। ১৯৬৮ সালে প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান। এ বিদ্যালয়েই একাধারে চল্লিশ বছর শিক্ষার আলো ছড়িয়ে চৌগাছা নিরিবিলিপাড়ায় মেয়ের বাড়িতে ইহকালের সকল মায়া ত্যাগ করে এ বছরের ২৮ এপ্রিল তিনি মৃত্যুবরণ করেন।