শিশু মুক্তার চিকিৎসার দায়িত্ব নিল স্বাস্থ্য বিভাগ

শাকিলা ইসলাম জুঁই,সাতক্ষীরা >
জটিল রোগে আক্রান্ত মুক্তার চিকিৎসার দায়িত্ব নিল স্বাস্থ্য বিভাগ। সোমবার বিকালে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু ও সিভিল সার্জন তহিদুর রহমানের নেতৃত্বে চিকিৎসকদের একটি প্রতিনিধি দল তার বাড়িতে গিয়ে মুক্তাকে নিয়ে এসে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে সদর হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে মুক্তার।
দৈনিক স্পন্দনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে মুক্তামনির হাতে ও শরীরে বিরল রোগের খবর প্রকাশের পর তোলপাড় সৃষ্টি হয় দেশজুড়ে।
এরপর অনেকেই এগিয়ে এসেছেন, হাত বাড়িয়েছেন মুক্তার চিকিৎসা সহায়তায়।
এক পর্যায়ে সোমবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নির্দেশনায় একটি প্রতিনিধি দল তার বাড়িতে গিয়ে মুক্তাকে নিয়ে আসে।
এদিকে, সোমবার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন সদর হাসপাতালে মুক্তাকে দেখতে যান এবং তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।
সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন তহিদুর রহমান জানান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মুক্তার চিকিৎসার যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছেন। বর্তমানে (রাত পৌনে আটটা) ডিজি স্যার মুক্তার চিকিৎসা সংক্রান্ত জরুরী সভায় রয়েছেন। সভা শেষে তিনি যেভাবে নির্দেশনা দেবেন, সেভাবেই মুক্তার চিকিৎসা শুরু করা হবে।
প্রসঙ্গত, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার বাশদাহ গ্রামের দক্ষিণ কামারবায়সা গ্রামের ইব্রাহিম হোসেন ও আসমা খাতুন দম্পতির মেয়ে মুক্তা বিরল রোগে আক্রান্ত। এতে মুক্তার ডান হাত ফুলে যায়। হাত পচে তাতে পোকা ধরে। দুর্গন্ধের সাথে বুকের একাংশেও ছড়িয়ে পড়ে এই রোগ। দীর্ঘ নয় বছরেও মুক্তার রোগ ধরতে পারেনি চিকিৎসকরা।
ইব্রাহিম হোসেন স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জানান, নয় বছর ধরে চেষ্টার কম করিনি। স্বাস্থ্য বিভাগ দায়িত্ব নেওয়ায় আবার নতুন করে আশায় বুক বেধেছি ।