বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদক পেলেন শেখ আফিল উদ্দিন এমপি>কৃষিতে উৎপাদন বাড়ানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খাদ্য উৎপাদন করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই আামাদের লক্ষ্য। এজন্য মাছ, মাংস, ডিম, দুধসহ সব ধরনের কৃষি উৎপাদন আরও বাড়াতে হবে। যেন দেশের চাহিদা পূরণ করে আমরা বিদেশে রফতানি করতে পারি।

রবিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদক ১৪২১-১৪২২ বঙ্গাব্দ’ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় কৃষিতে বিশেষ অবদান রাখায় জাতীয় বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকে ভূষিত হয়েছে আফিল এগ্রো লিমিটেড।  অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আফিল এগ্রো লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং দৈনিক স্পন্দন পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক আলহাজ শেখ আফিল উদ্দিন এমপি’র হাতে পদক ও সনদপত্র তুলে দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের কৃষকরা অসাধ্য সাধন করেছিলেন। ১৯৯৮ সালে এতো বড় বন্যা আর হয় নাই। সব কিছু বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। আন্তর্জাতিকভাবে বলা হয়েছিল প্রায় ২ কোটি লোক মারা যাবে। কিন্তু তা হয় নাই। আমরা বীজ হেলিকপ্টারে করে পৌঁছে দিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, আমাদের দেশের মানুষ যাতে খাদ্যে কষ্ট না পায় তার ব্যবস্থা করেছি। কৃষকদের আমরা সার, ভর্তুকি, কৃষি উপকরণ কার্ড করে দিয়েছি। কৃষিতে এখন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। এটা আর পিছিয়ে নেই।

তিনি আরও বলেন, বন্যা-প্রাকৃতিক দুর্যোগ সরকার সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কাটিয়ে উঠেছে। কিন্তু আরেকটা বন্যার পদধ্বনি শুনতে পাচ্ছি। আমাদের এক কোটি ৬ লাখ মেট্রিক টন খাদ্য মজুদ আছে। আরও খাদ্য আমদানি করা হচ্ছে। আমদানি পণ্যে শুল্কছাড় দেয়া হয়েছে, সুতরাং এ নিয়ে আর কোনো সমস্যা হবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর আমরা হাল ধরে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এর আগে বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেয়া হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের খাদ্য চাহিদা বাড়ছে, আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছি। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আমরা খাদ্য নিরাপত্তাও দিতে পারবো। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতেই সরকার কাজ করছে।

বাংলাদেশের উন্নয়নে কৃষিই সবচেয়ে বেশি অবদান রেখে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী কৃষি গবেষণা, উন্নত জাতের বীজ উদ্ভাবনে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের মাটি এতো উর্বর যে, কোনো কিছু উদ্যোগ নিলেই আমরা উৎপাদন করতে পারি। তাই কৃষি জমি নষ্ট করে যত্রতত্র শিল্প কারখানা গড়ে না তোলার নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। সেইসাথে বর্ষাকালে শাক-সবজির চাহিদা মেটাতে ভাসমান পদ্ধতিতে চাষের কথাও বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, বন ও পরিবেশমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ প্রমুখ।