সাতমাইলে ৪ জনের নেতৃত্বে ফেনসিডিল ও ইয়াবার ব্যবসা

বিল্লাল হোসেন>যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর ইউনিয়নের বারীনগর সাতমাইল এলাকায় ৪ জনের নেতৃত্বে একটি মাদক সিন্ডিকেট প্রকাশ্যে ইয়াবা ও ফেনসিডিলের ব্যবসা করছে। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী হওয়ায় তাদের অবৈধ এ কাজের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। মাদক ব্যবসা বন্ধে পুলিশের ভূমিকাও নিস্ক্রিয়। গত বছরের অক্টোবর মাসে ওইসব মাদক ব্যবসায়ীদের ডেরায় নিয়মিত পুলিশি অভিযানের কারণে তারা গাঁ ঢাকা দিয়েছিলো। বর্তমানে তারা প্রকাশ্যে রয়েছে।
স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, যে ৪ জনের নেতৃত্বে বর্তমানে মাদক ব্যবসা চলছে তারা হলো হৈবতপুরের মথুরাপুর গ্রামের রবিউল ইসলাম, সাতমাইল বাজারের সোহাগ, কাশিমপুর ইউনিয়নের নওয়াদাগাঁ গ্রামের শাহাজাহান ও আনোয়ারুল। এ মাদক সিন্ডিকেটের সাথে সদস্য হিসেবে রয়েছে ১৫/২০ জন বখাটে ও উচ্ছৃঙ্খল প্রকৃতির যুবক। তাদের কাজ হলো এলাকায় ফেনসিডিল ও ইয়াবা বিক্রি করা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাতমাইল বাজার, মানিকদিহি, শাহাবাজপুর রেললাইন এলাকা, তীরের হাট বাজার, মথুরাপুর, শ্যামনগর, নওয়াাদাগাঁসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে খুচরা মাদক বিক্রি করছে এ সিন্ডিকেটের সদস্যরা। অভিযোগ রয়েছে তারা সুযোগ বুঝে ফেনসিডিল ও ইয়াবার চালান বিভিন্ন অঞ্চলেও সরবরাহ করছে। মাদকের চালান পাঠানোর কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে সাদা রঙের একটি প্রাইভেটকার। স্থানীয়রা জানান, চিহ্নিত এ মাদক সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় তারা রীতিমতো বেপরোয়া। তারা বিভিন্ন মহলকে ম্যানেজ করে প্রকাশ্যে মাদকদ্রব্যের ব্যবসা করছে। স্থানীয়রা আরো জানান, গত বছরের অক্টোবর মাসে পুলিশ সাতমাইল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীর ডেরায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করতো। যে কারণে তারা ছিলো তটস্থ। ওই মাসেই (১৮ অক্টোবরে) মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের একটি টিম মাদক বিক্রেতা রবিউল ইসলামের মথুরাপুরাস্থ গ্রামের বাড়ি ও সাতমাইল বাজারে ডেরায় অভিযান চালায়। এ সময় রবিউল পালিয়ে যায়। তবে তার ডেরা থেকে ৪শ’ পিস ইয়াবা, দুটি ধারালো অস্ত্র ও পাঁচ রাউন্ড গুলি উদ্ধার হয়। অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন মাদকদ্রব্য অধিদপ্তর যশোরের পরিদর্শক মোশারফ হোসেন। এ অভিযানের পর থেকে অন্যরাও গাঁ ঢাকা দেয়। কিন্তু বর্তমানে তারা এলাকায় প্রাকশ্য থেকে ফেনসিডিল ও ইয়াবা বিক্রি করছে। এ ব্যাপারে সাঁজিয়ালী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আসাদুজ্জামান জানান, মাদক সিন্ডিকেট প্রধান রবিউল ও শাহাজাহানকে ফেনসিডিল ও ইয়াবাসহ আটক করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।