উপশহরে পানশাহী জর্দা কারখানার জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক:যশোর উপশহর এলাকার ‘পানশাহী জর্দা’ কারখানা মালিককে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জর্দা কারখানার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় মামলা দিয়ে এ জরিমানা আদায় করা হয়। অপরদিকে আলাদা ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরের ঘোপ জেল রোডের রানার্স বেকারি কারখানা এবং যশোরের খাজুরা বাজারের দুটি মিষ্টির দোকান মালিককে জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার পরিচালিত এ ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রে মো.আনিসুর রহমান, আরিফুর রহমান, আব্দুল্লাহ-আল-মাহফুজ ও জহির ইমাম।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত হাইকোর্ট মোড়ের ‘পানশাহী জর্দা’ কারখানায় অভিযান চালায়। এ সময় জর্দা ও পান মসলার মোড়কে স্বচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবানী, পরিবেশ ও ফায়ার সার্ভিসের ছাড়পত্র ও ক্ষতিকারক কেমিকেল ও রং ব্যবহারের অভিযোগে কারখানার মালিক ফজলুর রহমানের নামে মামলা দিয়ে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
বিকেল সোয়া ৩টার দিকে অপর একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরের ঘোপ জেল রোডের রানার্স বেকারির কারখানায় অভিযান চালায়। এ সময় নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরির অপরাধে মালিক আকবর হোসেনের নামে মামলা দিয়ে ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।
এর আগে দুপুর ১২টার দিকে আরেকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত যশোরের খাজুরা বাজারের ভাই ভাই মিষ্টান্ন ভান্ডারে অভিযান চালায়। অভিযানে ভ্রাম্যমাণ আদালত ক্রেতাদের ওজনে কম দেওয়ার প্রমাণ পান। এ অপরাধে মালিক বাসন্তী রায়ের নামে মামলা দিয়ে ১ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। এছাড়া একই বাজারের রবীন্দ্রনাথ মিষ্টান্ন ভান্ডারে অভিযান চালান অপর একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। নোংরা পরিবেশে মিষ্টি বিক্রির অপরাধে মালিকের নামে মামলা দিয়ে ৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। অভিযানকালে পরিবেশ অধিদফতরের সহকারি কেমিস্ট অফিসার নিখিল চন্দ্র ঢালী, পেশকার শেখ জালাল উদ্দীন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।